Dhaka , Saturday, 4 February 2023

রাস্তার গর্ত এড়াতে গিয়েই নিয়ন্ত্রণ হারান পন্ত

  • Robiul Islam
  • আপডেট টাইম : 08:26:56 am, Sunday, 1 January 2023
  • 13 বার

স্পোর্টস ডেস্ক: মারাত্মক দুর্ঘটনার শিকার হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন ভারতের উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান ঋষভ পন্ত। দেরাদুনের হাসপাতালে আস্তে আস্তে সেরে উঠছেন তিনি। ঋষভ জানিয়েছেন, অতিরিক্ত গতি কিংবা মাতাল অবস্থায় ছিলেন না।

মূলত রাস্তার গর্ত এড়ানোর গিয়েই তিনি ডিভাইডারের ওপর উঠে যান এবং ভয়াবহ দুর্ঘটনার শিকার হন। যদি তিনি মাতাল অবস্থায় থাকতেন তাহলে গাড়ীর ভেতরে থেকে বের হতে পারতেন না।

এ বিষয়ে হরিদ্বারের জ্যেষ্ঠ পুলিশ সুপারিনটেনডেন্ট আজাই সিং বলেছেন, ‘উত্তর প্রদেশের সীমান্ত থেকে আমরা ৮ থেকে ১০টি স্পিড ক্যামেরা চেক করেছি। কিন্তু ক্রিকেটারের গাড়ীকে কোথাও নির্দিষ্ট গতি অতিক্রম করতে দেখা যায়নি। ন্যাশনাল হাইওয়েতে ৮০ কিলোমিটার গতিতে গাড়ী চালানোর অনুমতি আছে। সিসিটিভি ফুটেজে গাড়ীর অতিরিক্ত গতি দেখার কারণ হলো গাড়ীটি ডিভাইডারে উঠে হাওয়ায় ভাসছিল। সে কারণেই মনে হচ্ছিল অতিরিক্ত গতি ছিল। আমাদের পরিদর্শক দল ইতোমধ্যে দুর্ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। তারাও সেখানে অতিরিক্ত গতির কিছু পায়নি।’

তিনি আরও বলেন, ‘যদি ক্রিকেটার মাতাল অবস্থায় থাকতেন, তাহলে ২০০ কিলোমিটার নিশ্চয়ই গাড়ী চালিয়ে যেতে পারতেন না। তাছাড়া রুরকি হাসপাতালের ডাক্তার যিনি তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়েছিলেন তিনিও জানিয়েছিলেন যে ক্রিকেটার স্বাভাবিক অবস্থায় ছিলেন, মাতাল ছিলেন না।’

Tag :

Write Your Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Save Your Email and Others Information

About Author Information

Robiul Islam

রাস্তার গর্ত এড়াতে গিয়েই নিয়ন্ত্রণ হারান পন্ত

আপডেট টাইম : 08:26:56 am, Sunday, 1 January 2023

স্পোর্টস ডেস্ক: মারাত্মক দুর্ঘটনার শিকার হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন ভারতের উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান ঋষভ পন্ত। দেরাদুনের হাসপাতালে আস্তে আস্তে সেরে উঠছেন তিনি। ঋষভ জানিয়েছেন, অতিরিক্ত গতি কিংবা মাতাল অবস্থায় ছিলেন না।

মূলত রাস্তার গর্ত এড়ানোর গিয়েই তিনি ডিভাইডারের ওপর উঠে যান এবং ভয়াবহ দুর্ঘটনার শিকার হন। যদি তিনি মাতাল অবস্থায় থাকতেন তাহলে গাড়ীর ভেতরে থেকে বের হতে পারতেন না।

এ বিষয়ে হরিদ্বারের জ্যেষ্ঠ পুলিশ সুপারিনটেনডেন্ট আজাই সিং বলেছেন, ‘উত্তর প্রদেশের সীমান্ত থেকে আমরা ৮ থেকে ১০টি স্পিড ক্যামেরা চেক করেছি। কিন্তু ক্রিকেটারের গাড়ীকে কোথাও নির্দিষ্ট গতি অতিক্রম করতে দেখা যায়নি। ন্যাশনাল হাইওয়েতে ৮০ কিলোমিটার গতিতে গাড়ী চালানোর অনুমতি আছে। সিসিটিভি ফুটেজে গাড়ীর অতিরিক্ত গতি দেখার কারণ হলো গাড়ীটি ডিভাইডারে উঠে হাওয়ায় ভাসছিল। সে কারণেই মনে হচ্ছিল অতিরিক্ত গতি ছিল। আমাদের পরিদর্শক দল ইতোমধ্যে দুর্ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। তারাও সেখানে অতিরিক্ত গতির কিছু পায়নি।’

তিনি আরও বলেন, ‘যদি ক্রিকেটার মাতাল অবস্থায় থাকতেন, তাহলে ২০০ কিলোমিটার নিশ্চয়ই গাড়ী চালিয়ে যেতে পারতেন না। তাছাড়া রুরকি হাসপাতালের ডাক্তার যিনি তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়েছিলেন তিনিও জানিয়েছিলেন যে ক্রিকেটার স্বাভাবিক অবস্থায় ছিলেন, মাতাল ছিলেন না।’