Dhaka , Saturday, 22 June 2024

অপব্যয় ইসলামে অপছন্দনীয় কাজ

  • Robiul Islam
  • আপডেট টাইম : 08:25:55 am, Tuesday, 14 February 2023
  • 34 বার

ইসলাম ডেস্ক: কৃপণতা একটি মন্দ স্বভাব। খেয়ানত, বিশ্বাসঘাতকতা, নির্দয়তা ইত্যাদি মন্দ স্বভাব থেকে এর সৃষ্টি হয়। ইসলাম কৃপণতার মূলোৎপাটনের ওপর বিশেষ গুরুত্ব আরোপ করেছে। এ কারণেই ক্ষুধার্তকে খাদ্য দান, বস্ত্রহীনকে বস্ত্র দান, অভাবগ্রস্তকে সাহায্য দান, এতিমদের লালনপালন ও ঋণগ্রস্তকে সাহায্য দান মুসলমানের গুরুত্বপূর্ণ কর্তব্য বলে ঘোষণা করা হয়েছে। রসুলুল্লাহ (সা.) নবুয়ত প্রাপ্তির আগে এর সব গুণে গুণান্বিত ছিলেন বলে হজরত খাদিজা (রা.)-এর উক্তি থেকে প্রকাশ পায়।

তিনি বলেন, আপনি আত্মীয়র প্রতি সদাচরণ করেন, অসহায় ব্যক্তির বোঝা বহন করেন, নিঃস্ব ব্যক্তির জন্য উপার্জনের ব্যবস্থা করে দেন, মেহমানদের আপ্যায়ন করেন এবং বিপদগ্রস্ত মানুষের প্রতি সহায়তা দান করেন। (বুখারি) কৃপণতা মানুষের জন্য কখনো কল্যাণকর নয় বরং তা অনিষ্টই বয়ে আনে।

এ প্রসঙ্গে কোরআন মাজিদে মহান রব্বুল আলামিন ইরশাদ করেন, ‘এবং আল্লাহ নিজ অনুগ্রহে যা তাদের দিয়েছেন, তাতে যারা কৃপণতা করে, তাদের জন্য তা মঙ্গল এটা যেন তারা কিছুতেই মনে না করে। বরং এটা তাদের জন্য অমঙ্গল। যে বিষয়ে তারা কৃপণতা করবে কেয়ামতের দিন তা তাদের গলায় বেড়ি পরিয়ে দেওয়া হবে।’ (সুরা আলে ইমরান, আয়াত ১৮০) মূলত কৃপণতা মানুষকে আল্লাহ থেকে দূরে সরিয়ে জাহান্নাম পর্যন্ত পৌঁছে দেয়। এ প্রসঙ্গে আল্লাহতায়ালা কোরআন কারিমে ইরশাদ করেন, ‘তোমাদের কীসে সাকারে (জাহান্নামে) নিক্ষেপ করেছে।

তারা বলবে, আমরা মুসল্লিদের অন্তর্ভুক্ত ছিলাম না এবং আমরা অভাবগ্রস্তদের আহার্য দান করতাম না।’ (সুরা মুদ্দাসসসির, আয়াত ৪২-৪৪) প্রিয় নবী (সা.) ইরশাদ করেন, ‘কৃপণ ব্যক্তি আল্লাহ, জান্নাত ও মানুষ থেকে দূরে থাকবে, কিন্তু জাহান্নামের নিকটবর্তী থাকবে।’ (তিরমিজি) কৃপণ ব্যক্তির পরিণাম সম্পর্কে নবী করিম (সা.) ইরশাদ করেন, ‘প্রতারক, কৃপণ এবং যে ব্যক্তি নিজ অনুগ্রহের কথা অন্যের কাছে বলে বেড়ায় তারা জান্নাতে প্রবেশ করতে পারবে না।’ (তিরমিজি) তিনি আরও বলেন, ‘কৃপণতা ও মন্দ স্বভাব মোমিন ব্যক্তির মধ্যে একত্র হতে পারে না।’ (তিরমিজি) প্রিয় নবী হজরত মুহাম্মদ (সা.) আরও ইরশাদ করেন, ‘তোমরা কৃপণতা থেকে বেঁচে থাকো, কেননা এ কৃপণতা তোমাদের পূর্ববর্তীদের ধ্বংস করে দিয়েছে। তাদের উসকে দিয়েছে, যেন তারা রক্তপাত ঘটায় এবং হারামকে হালাল জানে।’ (মিশকাত)

ঠিক যেমনিভাবে ব্যয়ের ক্ষেত্রে কৃপণতা ইসলামে অপছন্দনীয়, তদ্রূপ খরচের ক্ষেত্রেও অপব্যয় এবং অপচয়ও দূষণীয় ও বর্জনীয়। কেননা ‘ইসরাফ’ অর্থ সীমা অতিক্রম করা। শরিয়তের পরিভাষায় বৈধ কাজে প্রয়োজন-অতিরিক্ত ব্যয় করাকে ইসরাফ বা অপচয় বলে। কোরআন মাজিদে আল্লাহর খাঁটি বান্দাদের বৈশিষ্ট্য বর্ণনা প্রসঙ্গে ইরশাদ হয়েছে, ‘এবং যখন তারা ব্যয় করে তখন তারা অপচয় করে না, কার্পণ্যও করে না বরং তারা আছে এ দুয়ের মধ্যে মধ্যম পন্থায়।’ (সুরা ফোরকান, আয়াত ৬৭) অন্য আয়াতে মহান আল্লাহ ইরশাদ করেন, ‘এবং আহার করবে ও পান করবে কিন্তু অপব্যয় করবে না, তিনি অপব্যয়কারীকে পছন্দ করেন না।’ (সুরা আরাফ, আয়াত ৩১) পক্ষান্তরে অবৈধ কাজে কোনো প্রকার ব্যয় করাকে ‘তাবজির’ বা অপব্যয় বলে। ইসলামে এও সম্পূর্ণভাবে নিষিদ্ধ।

কেননা আল্লাহ ইরশাদ করেন, ‘আর কিছুতেই অপব্যয় করবে না, যারা অপব্যয় করে তারা শয়তানের ভাই এবং শয়তান তার প্রতিপালকের প্রতি অতিশয় অকৃতজ্ঞ।’ (সুরা ইসরাইল, আয়াত ২৬-২৭) ওপরে কোরআন-হাদিসের সম্মিলিত আলোচনা দ্বারা এ কথা বোঝা গেল যে, আল্লাহর প্রিয় পাত্র ও খাঁটি বান্দা হতে হলে আল্লাহর নিষিদ্ধ সব রকমের কৃপণতা এবং অপচয় বর্জন ও পরিহার করে মধ্যম পন্থা অবলম্বন করা আবশ্যক। এ প্রসঙ্গে প্রিয় নবী (সা.) ইরশাদ করেন, ‘ব্যয় করার ক্ষেত্রে মধ্যম পন্থা অবলম্বন করা ব্যক্তির বুদ্ধিমত্তার পরিচায়ক।’ অন্য একটি হাদিসে তিনি ইরশাদ করেন, ‘যে ব্যক্তি ব্যয় করার ক্ষেত্রে মধ্যম পন্থা অবলম্বন করে, সে কখনো ফকির ও অভাবগ্রস্ত হয় না।’ (আল হাদিস)

আল্লাহর দেওয়া নেয়ামতকে গনিমত মনে করে নিজের ও নিজ পরিবারের প্রয়োজনে সাধ্যমতো ব্যয় করে দুনিয়ার সুখশান্তি ও আরাম-আয়েশের মধ্যে জীবনযাপন করে আল্লাহর হুকুম ও নবীর তরিকায় ইমান-আমলের ওপর অটল থাকাই আল্লাহর নির্দেশ। এ ক্ষেত্রে কোনো প্রকারের কৃপণতার আশ্রয় না নেওয়া, সর্বোপরি কোনো প্রকারের অপব্যয় ও গুনাহের কাজে অপচয় করা থেকে নিজেকে রক্ষা করা প্রত্যেক মুসলমানের জন্য অবশ্যই করণীয় কর্তব্য। কেননা অপব্যয় ও অপচয়কারী শয়তানের ভাই। আর শয়তান মানুষকে জাহান্নামের দিকে নিয়ে যায়। আল্লাহ আমাদের সবাইকে গুনাহের কাজ থেকে হেফাজত করুন।

Tag :

Write Your Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Save Your Email and Others Information

About Author Information

Robiul Islam

জনপ্রিয় সংবাদ

অপব্যয় ইসলামে অপছন্দনীয় কাজ

আপডেট টাইম : 08:25:55 am, Tuesday, 14 February 2023

ইসলাম ডেস্ক: কৃপণতা একটি মন্দ স্বভাব। খেয়ানত, বিশ্বাসঘাতকতা, নির্দয়তা ইত্যাদি মন্দ স্বভাব থেকে এর সৃষ্টি হয়। ইসলাম কৃপণতার মূলোৎপাটনের ওপর বিশেষ গুরুত্ব আরোপ করেছে। এ কারণেই ক্ষুধার্তকে খাদ্য দান, বস্ত্রহীনকে বস্ত্র দান, অভাবগ্রস্তকে সাহায্য দান, এতিমদের লালনপালন ও ঋণগ্রস্তকে সাহায্য দান মুসলমানের গুরুত্বপূর্ণ কর্তব্য বলে ঘোষণা করা হয়েছে। রসুলুল্লাহ (সা.) নবুয়ত প্রাপ্তির আগে এর সব গুণে গুণান্বিত ছিলেন বলে হজরত খাদিজা (রা.)-এর উক্তি থেকে প্রকাশ পায়।

তিনি বলেন, আপনি আত্মীয়র প্রতি সদাচরণ করেন, অসহায় ব্যক্তির বোঝা বহন করেন, নিঃস্ব ব্যক্তির জন্য উপার্জনের ব্যবস্থা করে দেন, মেহমানদের আপ্যায়ন করেন এবং বিপদগ্রস্ত মানুষের প্রতি সহায়তা দান করেন। (বুখারি) কৃপণতা মানুষের জন্য কখনো কল্যাণকর নয় বরং তা অনিষ্টই বয়ে আনে।

এ প্রসঙ্গে কোরআন মাজিদে মহান রব্বুল আলামিন ইরশাদ করেন, ‘এবং আল্লাহ নিজ অনুগ্রহে যা তাদের দিয়েছেন, তাতে যারা কৃপণতা করে, তাদের জন্য তা মঙ্গল এটা যেন তারা কিছুতেই মনে না করে। বরং এটা তাদের জন্য অমঙ্গল। যে বিষয়ে তারা কৃপণতা করবে কেয়ামতের দিন তা তাদের গলায় বেড়ি পরিয়ে দেওয়া হবে।’ (সুরা আলে ইমরান, আয়াত ১৮০) মূলত কৃপণতা মানুষকে আল্লাহ থেকে দূরে সরিয়ে জাহান্নাম পর্যন্ত পৌঁছে দেয়। এ প্রসঙ্গে আল্লাহতায়ালা কোরআন কারিমে ইরশাদ করেন, ‘তোমাদের কীসে সাকারে (জাহান্নামে) নিক্ষেপ করেছে।

তারা বলবে, আমরা মুসল্লিদের অন্তর্ভুক্ত ছিলাম না এবং আমরা অভাবগ্রস্তদের আহার্য দান করতাম না।’ (সুরা মুদ্দাসসসির, আয়াত ৪২-৪৪) প্রিয় নবী (সা.) ইরশাদ করেন, ‘কৃপণ ব্যক্তি আল্লাহ, জান্নাত ও মানুষ থেকে দূরে থাকবে, কিন্তু জাহান্নামের নিকটবর্তী থাকবে।’ (তিরমিজি) কৃপণ ব্যক্তির পরিণাম সম্পর্কে নবী করিম (সা.) ইরশাদ করেন, ‘প্রতারক, কৃপণ এবং যে ব্যক্তি নিজ অনুগ্রহের কথা অন্যের কাছে বলে বেড়ায় তারা জান্নাতে প্রবেশ করতে পারবে না।’ (তিরমিজি) তিনি আরও বলেন, ‘কৃপণতা ও মন্দ স্বভাব মোমিন ব্যক্তির মধ্যে একত্র হতে পারে না।’ (তিরমিজি) প্রিয় নবী হজরত মুহাম্মদ (সা.) আরও ইরশাদ করেন, ‘তোমরা কৃপণতা থেকে বেঁচে থাকো, কেননা এ কৃপণতা তোমাদের পূর্ববর্তীদের ধ্বংস করে দিয়েছে। তাদের উসকে দিয়েছে, যেন তারা রক্তপাত ঘটায় এবং হারামকে হালাল জানে।’ (মিশকাত)

ঠিক যেমনিভাবে ব্যয়ের ক্ষেত্রে কৃপণতা ইসলামে অপছন্দনীয়, তদ্রূপ খরচের ক্ষেত্রেও অপব্যয় এবং অপচয়ও দূষণীয় ও বর্জনীয়। কেননা ‘ইসরাফ’ অর্থ সীমা অতিক্রম করা। শরিয়তের পরিভাষায় বৈধ কাজে প্রয়োজন-অতিরিক্ত ব্যয় করাকে ইসরাফ বা অপচয় বলে। কোরআন মাজিদে আল্লাহর খাঁটি বান্দাদের বৈশিষ্ট্য বর্ণনা প্রসঙ্গে ইরশাদ হয়েছে, ‘এবং যখন তারা ব্যয় করে তখন তারা অপচয় করে না, কার্পণ্যও করে না বরং তারা আছে এ দুয়ের মধ্যে মধ্যম পন্থায়।’ (সুরা ফোরকান, আয়াত ৬৭) অন্য আয়াতে মহান আল্লাহ ইরশাদ করেন, ‘এবং আহার করবে ও পান করবে কিন্তু অপব্যয় করবে না, তিনি অপব্যয়কারীকে পছন্দ করেন না।’ (সুরা আরাফ, আয়াত ৩১) পক্ষান্তরে অবৈধ কাজে কোনো প্রকার ব্যয় করাকে ‘তাবজির’ বা অপব্যয় বলে। ইসলামে এও সম্পূর্ণভাবে নিষিদ্ধ।

কেননা আল্লাহ ইরশাদ করেন, ‘আর কিছুতেই অপব্যয় করবে না, যারা অপব্যয় করে তারা শয়তানের ভাই এবং শয়তান তার প্রতিপালকের প্রতি অতিশয় অকৃতজ্ঞ।’ (সুরা ইসরাইল, আয়াত ২৬-২৭) ওপরে কোরআন-হাদিসের সম্মিলিত আলোচনা দ্বারা এ কথা বোঝা গেল যে, আল্লাহর প্রিয় পাত্র ও খাঁটি বান্দা হতে হলে আল্লাহর নিষিদ্ধ সব রকমের কৃপণতা এবং অপচয় বর্জন ও পরিহার করে মধ্যম পন্থা অবলম্বন করা আবশ্যক। এ প্রসঙ্গে প্রিয় নবী (সা.) ইরশাদ করেন, ‘ব্যয় করার ক্ষেত্রে মধ্যম পন্থা অবলম্বন করা ব্যক্তির বুদ্ধিমত্তার পরিচায়ক।’ অন্য একটি হাদিসে তিনি ইরশাদ করেন, ‘যে ব্যক্তি ব্যয় করার ক্ষেত্রে মধ্যম পন্থা অবলম্বন করে, সে কখনো ফকির ও অভাবগ্রস্ত হয় না।’ (আল হাদিস)

আল্লাহর দেওয়া নেয়ামতকে গনিমত মনে করে নিজের ও নিজ পরিবারের প্রয়োজনে সাধ্যমতো ব্যয় করে দুনিয়ার সুখশান্তি ও আরাম-আয়েশের মধ্যে জীবনযাপন করে আল্লাহর হুকুম ও নবীর তরিকায় ইমান-আমলের ওপর অটল থাকাই আল্লাহর নির্দেশ। এ ক্ষেত্রে কোনো প্রকারের কৃপণতার আশ্রয় না নেওয়া, সর্বোপরি কোনো প্রকারের অপব্যয় ও গুনাহের কাজে অপচয় করা থেকে নিজেকে রক্ষা করা প্রত্যেক মুসলমানের জন্য অবশ্যই করণীয় কর্তব্য। কেননা অপব্যয় ও অপচয়কারী শয়তানের ভাই। আর শয়তান মানুষকে জাহান্নামের দিকে নিয়ে যায়। আল্লাহ আমাদের সবাইকে গুনাহের কাজ থেকে হেফাজত করুন।