Dhaka , Thursday, 29 February 2024

ফের চালু হচ্ছে রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র

  • Robiul Islam
  • আপডেট টাইম : 08:32:03 am, Wednesday, 15 February 2023
  • 29 বার

নিউজ ডেস্ক: দীর্ঘ এক মাস বন্ধ থাকার পর পুনরায় উৎপাদনে যাচ্ছে রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র। উৎপাদন শুরুর ২৭ দিনের মাথায় কয়লা সংকটে ১৪ জানুয়ারি উৎপাদন বন্ধ হয়ে যায়।

জানা গেছে, ৯ ফেব্রুয়ারি রাতে ৩০ হাজার টন কয়লা নিয়ে একটি জাহাজ রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্রে আসে। আরেকটি জাহাজ ৫০ হাজার টন কয়লা নিয়ে ১৮ ফেব্রুয়ারি আসার কথা রয়েছে। প্রতিদিন কেন্দ্রটির একটি ইউনিট চালু রাখতে প্রয়োজন পাঁচ হাজার টন কয়লা।

বাংলাদেশ-ভারতের যৌথ বিনিয়োগে এক হাজার ৩২০ মেগাওয়াটের বিদ্যুৎকেন্দ্রটি নির্মিত হয়েছে বাগেরহাটের রামপালে। প্রথম ইউনিটের উৎপাদনক্ষমতা ৬৬০ মেগাওয়াট। ১৫ আগস্ট প্রথম ইউনিট পরীক্ষামূলক উৎপাদন শুরু করে।

রাজধানীর বিদ্যুৎ সংকট দূর করতে ১৭ ডিসেম্বর রাত থেকে জাতীয় গ্রিডে বিদ্যুৎ সরবরাহ শুরু হয়। এলসি জটিলতায় কয়লা আমদানি ব্যাহত হওয়ায় ১৪ জানুয়ারি সকাল ৯টার দিকে উৎপাদন বন্ধ হয়ে যায়।

৬৩৮ মেগাওয়াট পর্যন্ত বিদ্যুৎ সরবরাহ করেছে কেন্দ্রটি। জুনে দ্বিতীয় ইউনিট বাণিজ্যিকভাবে বিদ্যুৎ উৎপাদনে যাওয়ার কথা রয়েছে।

বাংলাদেশ-ইন্ডিয়া ফ্রেন্ডশিপ পাওয়ার কোম্পানির (বিআইএফপিসিএল) উপমহাব্যবস্থাপক আনোয়ারুল আজিম বলেন, কয়লা আসায় বুধবার পুনরায় বিদ্যুৎকেন্দ্রটি চালু হচ্ছে।

আজিম বলেন, ৩০ হাজার টন কয়লা দিয়ে মাত্র ৬ দিন কেন্দ্রটির একটি ইউনিট চালানো যাবে। পরে ৫০ হাজার টন কয়লা এলে তা দিয়ে কেন্দ্রটি আরও ১০ দিন চালানো যাবে। ইন্দোনেশিয়া থেকে একটি জাহাজ বিদ্যুৎকেন্দ্রটির জেটিতে ভিড়তে ৭ থেকে ১০ দিন সময় লাগে।

সূত্র জানায়, কেন্দ্রটিতে কয়লা মজুতের সক্ষমতা রয়েছে তিন মাসের। নিয়ম অনুযায়ী এক মাসের কয়লা মজুত রাখার বাধ্যবাধকতা থাকলেও ডলার সংকটে এতদিন কেন্দ্রটিতে কয়লার কোনো মজুত ছিল না।

Tag :

Write Your Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Save Your Email and Others Information

About Author Information

Robiul Islam

ফের চালু হচ্ছে রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র

আপডেট টাইম : 08:32:03 am, Wednesday, 15 February 2023

নিউজ ডেস্ক: দীর্ঘ এক মাস বন্ধ থাকার পর পুনরায় উৎপাদনে যাচ্ছে রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র। উৎপাদন শুরুর ২৭ দিনের মাথায় কয়লা সংকটে ১৪ জানুয়ারি উৎপাদন বন্ধ হয়ে যায়।

জানা গেছে, ৯ ফেব্রুয়ারি রাতে ৩০ হাজার টন কয়লা নিয়ে একটি জাহাজ রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্রে আসে। আরেকটি জাহাজ ৫০ হাজার টন কয়লা নিয়ে ১৮ ফেব্রুয়ারি আসার কথা রয়েছে। প্রতিদিন কেন্দ্রটির একটি ইউনিট চালু রাখতে প্রয়োজন পাঁচ হাজার টন কয়লা।

বাংলাদেশ-ভারতের যৌথ বিনিয়োগে এক হাজার ৩২০ মেগাওয়াটের বিদ্যুৎকেন্দ্রটি নির্মিত হয়েছে বাগেরহাটের রামপালে। প্রথম ইউনিটের উৎপাদনক্ষমতা ৬৬০ মেগাওয়াট। ১৫ আগস্ট প্রথম ইউনিট পরীক্ষামূলক উৎপাদন শুরু করে।

রাজধানীর বিদ্যুৎ সংকট দূর করতে ১৭ ডিসেম্বর রাত থেকে জাতীয় গ্রিডে বিদ্যুৎ সরবরাহ শুরু হয়। এলসি জটিলতায় কয়লা আমদানি ব্যাহত হওয়ায় ১৪ জানুয়ারি সকাল ৯টার দিকে উৎপাদন বন্ধ হয়ে যায়।

৬৩৮ মেগাওয়াট পর্যন্ত বিদ্যুৎ সরবরাহ করেছে কেন্দ্রটি। জুনে দ্বিতীয় ইউনিট বাণিজ্যিকভাবে বিদ্যুৎ উৎপাদনে যাওয়ার কথা রয়েছে।

বাংলাদেশ-ইন্ডিয়া ফ্রেন্ডশিপ পাওয়ার কোম্পানির (বিআইএফপিসিএল) উপমহাব্যবস্থাপক আনোয়ারুল আজিম বলেন, কয়লা আসায় বুধবার পুনরায় বিদ্যুৎকেন্দ্রটি চালু হচ্ছে।

আজিম বলেন, ৩০ হাজার টন কয়লা দিয়ে মাত্র ৬ দিন কেন্দ্রটির একটি ইউনিট চালানো যাবে। পরে ৫০ হাজার টন কয়লা এলে তা দিয়ে কেন্দ্রটি আরও ১০ দিন চালানো যাবে। ইন্দোনেশিয়া থেকে একটি জাহাজ বিদ্যুৎকেন্দ্রটির জেটিতে ভিড়তে ৭ থেকে ১০ দিন সময় লাগে।

সূত্র জানায়, কেন্দ্রটিতে কয়লা মজুতের সক্ষমতা রয়েছে তিন মাসের। নিয়ম অনুযায়ী এক মাসের কয়লা মজুত রাখার বাধ্যবাধকতা থাকলেও ডলার সংকটে এতদিন কেন্দ্রটিতে কয়লার কোনো মজুত ছিল না।