Dhaka , Friday, 23 February 2024
শিরোনাম :
চোখ লাফানোও হতে পারে মারাত্মক অসুখ মেক্সিকো সিটিতে রবীন্দ্র-নজরুল জয়ন্তী রাস্তা প্রশস্ত করতে ইরাকে ভাঙা হল তিনশ’ বছরের পুরনো মিনার, চারিদিকে নিন্দা অবৈধ অভিবাসীদের ঠেকাতে তিউনিসিয়া-ইইউ সমঝোতা শস্য চুক্তি নিয়ে অনিশ্চয়তা, ইউক্রেন ছাড়ল শেষ শস্যবাহী জাহাজ ফ্রাঙ্কফুর্টে সান বাঁধানো লেকের ধারে জমে উঠেছিল প্রবাসীদের ঈদ উৎসব দশ মাস পর আবারও রাস্তায় ইরানের বিতর্কিত ‘নীতি পুলিশ’ বার্সেলোনায় ঐতিহ্যবাহী ‘বাংলার মেলা’ মার্কিন গুচ্ছ বোমা ব্যবহার করলেই ইউক্রেনের ‘সর্বনাশ’, পুতিনের হুঁশিয়ারি ফ্রাঙ্কফুর্টে বাংলাদেশ দূতাবাসে প্রবাসীদের কনস্যুলার সেবা প্রদান কর্মসূচি পালিত

বিলাসী পণ্যে ঠেকানো যাচ্ছে না হুন্ডি

  • Robiul Islam
  • আপডেট টাইম : 08:10:06 am, Thursday, 23 February 2023
  • 27 বার

নিউজ ডেস্ক: গাড়ি, মোটরসাইকেল, মোটর পার্টস, ইলেকট্রনিক্স সামগ্রী, বিভিন্ন ফলসহ বিলাসী পণ্য আমদানির নামে হুন্ডিতে টাকা পাঠানোর কারণে সর্বনাশ হচ্ছে অর্থনীতির। অল্প টাকার এলসি খুলে হুন্ডিতে বাকি টাকা পাঠানোর কারণে শিল্পকারখানার এলসিতে জটিলতা তৈরি হচ্ছে। নবাবপুরের ইলেকট্রনিক্স মার্কেটে ও গাড়ির বাজারেও একই ধরনের অভিযোগ উঠছে। ফল আমদানিতে অর্থ পাচার হচ্ছে ওভার ইনভয়েসিংয়ের মাধ্যমে।

 

প্রতিবেশী দেশের সঙ্গে তুলনা করলে দেখা যায়, ফল আমদানিতে প্রকৃত মূল্যের ২০ থেকে ২০০ ভাগ পর্যন্ত অতিরিক্ত দেখিয়ে এলসি করা হচ্ছে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এসব হুন্ডি বন্ধ করা গেলে সংকট অনেকটা কেটে যাবে। বর্তমান কঠিন অর্থনীতিতে ডলারের অভাবে শিল্পকারখানা মালিকরা এলসি খুলতে পারছেন না। স্বাভাবিক ব্যবসা-বাণিজ্য থমকে যাচ্ছে। অনেকে ব্যাংক ঋণ নিয়ে শিল্পকারখানা গড়ে তোলার জন্য এলসির অভাবে মালামাল আনতে পারছেন না। অন্যদিকে ইলেকট্রনিক্স সামগ্রী আমদানির নামে টাকা পাচার হচ্ছে। এভাবে শিল্প স্থাপনে ব্যাঘাত হলে এবং কাঁচামালের অভাবে কলকারখানা বন্ধ হয়ে গেলে শ্রমিকরা চাকরি হারাবে। এতে দেশে তৈরি হবে অস্থিতিশীলতা।

 

জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) অধীন শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদফতরের তথ্য বলছে, গত বছরের সেপ্টেম্বর ও অক্টোবরে চট্টগ্রাম ও মোংলা কাস্টম হাউস দিয়ে মিথ্যা ঘোষণার মাধ্যমে আনা সাত-আটটি চালানের কাগজপত্র জব্দ করেছেন গোয়েন্দারা। মিথ্যা ঘোষণায় আমদানি গাড়ির বেশির ভাগই বিলাসবহুল, দামি এবং নতুন। এসব গাড়ি আমদানিতে ৩০ থেকে ৫০ শতাংশ পর্যন্ত কম মূল্য দেখিয়ে টাকা পাচারের অভিযোগ উঠেছে। যুক্তরাজ্য থেকে থেকে নতুন মডেলের ১৩৩২ সিসির একটি মার্সিডিজ বেঞ্জ জিপ আমদানিকারক মূল্য ঘোষণা করেছেন ২৯ লাখ টাকা। কাস্টমস পরীক্ষা করে দেখেছে, আন্তর্জাতিক বাজারে গাড়িটির দাম প্রায় ৪০ লাখ টাকা। আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান ২০০০ সিসির গাড়ির মূল্য ঘোষণা করে ৪১ লাখ টাকা। গোয়েন্দারা বলেছেন, গাড়িটির শুল্কায়নযোগ্য মূল্য প্রায় ৫০ লাখ টাকা।

 

শুল্ক গোয়েন্দার তদন্তে এ রকম ৩০-৪০টি গাড়ি আমদানিতে টাকা পাচারের ঘটনা বেরিয়ে এসেছে। কয়েকটি প্রতিষ্ঠান ৮ থেকে ১০টি চালানে এসব গাড়ি এনেছে যুক্তরাজ্য, সিঙ্গাপুর ও জার্মানি থেকে। গাড়ি ব্যবসায়ীরা জানান, দেশে আমদানি করা গাড়ির ২০ শতাংশ নতুন। গত বছর দেশে প্রায় ২৫ হাজার গাড়ি আমদানি হয়। এর মধ্যে ৫ হাজার নতুন গাড়ি আনা হয় জার্মানি, যুক্তরাজ্য, সিঙ্গাপুরসহ অন্যান্য দেশ থেকে। কিছু নতুন গাড়ি আসে জাপান থেকে। বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর আবদুর রউফ তালুকদার এক অনুষ্ঠানে জানিয়েছেন, ১ লাখ ডলারের মার্সিডিজের দাম ঘোষণা করা হয় মাত্র ২০ হাজার ডলার। বাকি অর্থ পাঠানো হয় হুন্ডিতে।

 

এ বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর সালেহউদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘অভিনব কৌশলে অর্থ পাচার হচ্ছে। অর্থ পাচার রোধে বিলাসবহুল গাড়ি, ইলেকট্রনিক্স সামগ্রী, ফল আমদানি সম্পূর্ণ বন্ধ রাখতে হবে। এগুলো অপরিহার্য় কোনো পণ্য নয় যে আমদানি বন্ধ রাখলে ক্ষতি হবে। রপ্তানি, রেমিট্যান্স ও বিদেশি বিনিয়োগ না বাড়ালে এ সংকট শিগগির কাটবে না।’

 

জাতীয় রাজস্ব বোর্ড-এনবিআর সূত্র বলছেন, বিদেশি ফল আমদানির আড়ালে অর্থ পাচারের রেকর্ড তৈরি করেছে একশ্রেণির অসাধু ব্যবসায়ী। ২০২২ সালে ৫ হাজার ১৭ কোটি টাকার ফল আমদানি হয়েছে; যা আগের বছরের চেয়ে প্রায় ৯৭ শতাংশ বেশি। ২০২১ সালে যা ছিল ২ হাজার ৫৫০ কোটি টাকা।

 

এনবিআরসূত্র বলছেন, ফল আমদানিতে মিথ্যা ঘোষণা দিয়ে অর্থ পাচার হচ্ছে। ফল আমদানি নিরুৎসাহ করতে আমদানি শুল্ক বাড়ানোর জন্য বাণিজ্য মন্ত্রণালয় বেশ কয়েকবার উদ্যোগ নিলেও এখনো কার্যকর হয়নি। এ পরিস্থিতিতে ফল আমদানি বন্ধ রাখার পরামর্শ দিয়েছেন ব্যবসায়ী ও অর্থনীতিবিদরা।

 

শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদফতর সূত্র জানান, ফল আমদানির এলসি খোলা হলেও এসেছে সিগারেট। এলসি খোলা হয়েছে ৩ হাজার ডলারের (প্রায় ২ লাখ ৪০ হাজার টাকা), কিন্তু আমদানি করা হয়েছে প্রায় ৩ কোটি টাকার। আরব আমিরাতে পাচার করা হয়েছে সেই টাকা। নামসর্বস্ব প্রতিষ্ঠানের নামে খোলা হিসাব যাচাই-বাছাই না করে এলসি করে পাঠাচ্ছে ব্যাংকগুলো। প্রতিবারই ফল আমদানির নাম করে পাঠানো হয়েছে টাকা। আর আমদানি করা হয়েছে সিগারেট।

 

এ বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর আবদুর রউফ তালুকদার বলেন, বেশি দামের পণ্য কম দামে এলসি খুলে বাকি অর্থ হুন্ডিতে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। আমদানি করা বিভিন্ন পণ্যে ২০ থেকে ২০০ শতাংশ পর্যন্ত ওভার ইনভয়েস (আমদানি মূল্য বাড়িয়ে দেখানো) হয়েছে। ভারত থেকে আঙুর আমদানিতে এলসি খোলা হচ্ছে প্রতি কেজি ৯০ সেন্ট, সবুজ কমলা ও আনার ৭০ সেন্ট কেজিতে এলসি খোলা হচ্ছে। যেখানে ভারতের বাজারে সবচেয়ে ভালো মানের প্রতি কেজি আঙুর বিক্রি হচ্ছে গড়ে ৬০ রুপি, কমলা ৫০ রুপি। প্রতিবেশী দেশের সঙ্গে তুলনা করলে দেখা যায়, আঙুর, কমলা ও আনার বেশি দামে আমদানি করা হচ্ছে। দক্ষিণ আফ্রিকা, ব্রাজিল, নিউজিল্যান্ড ও আর্জেন্টিনা থেকে আপেল আমদানি করা হচ্ছে অতিরিক্ত দাম উল্লেখ করে। ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআইয়ের সাবেক সভাপতি শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ‘আমাদের দেশে এখন অনেক ফল উৎপাদন হচ্ছে। বিশেষ করে যেসব ফল আমদানি করা হচ্ছে, এগুলোও চাষ হচ্ছে। এখন দেশে উৎপাদিত ফল দিয়ে চাহিদা মেটানো সম্ভব। তাই চলমান সংকটের মধ্যে ফল আমদানি বন্ধ রাখা হোক।’

 

দেশে কনজিউমার ডিউরেবলস বা দীর্ঘমেয়াদে ব্যবহার্য ইলেকট্রনিক্স পণ্যের বাজার ক্রমেই বড় হচ্ছে। গত পাঁচ বছরে এসব পণ্যের আমদানি বেড়েছে উল্লেখযোগ্য হারে। এর মধ্যে টিভি, ফ্রিজ ও এসি এবং মোটরসাইকেলের আমদানিও বেড়েছে। ২০২২ সালে মোটরসাইকেল আমদানি বেড়েছে আগের বছরের চেয়ে প্রায় ২০ শতাংশ। গত বছর আমদানি ও বিক্রি হয়েছে প্রায় ৫ লাখ ৯০ হাজার মোটরসাইকেল, যা আগের বছরের তুলনায় প্রায় ১ লাখ বেশি।

 

দেশে টেলিভিশন, এয়ারকন্ডিশনার ও রেফ্রিজারেটর কোম্পানিগুলোর চাহিদা মেটানোর সক্ষমতা থাকলেও এসব পণ্যও আমদানি করা হচ্ছে। দেশে ৬ হাজার কোটি টাকার রেফ্রিজারেটরের চাহিদা থাকলেও আমদানি করা ফ্রিজ বিক্রি হচ্ছে ১ হাজার ৩৮০ কোটি টাকার। ৬ হাজার ৫০০ কোটি টাকার এয়াকন্ডিশনারের বাজারের ৩০ শতাংশ রয়েছে বিদেশি কোম্পানিগুলোর দখলে। ৩ হাজার ৫০০ কোটি টাকার টেলিভিশন বাজারের একটি অংশ বিদেশি কোম্পানিগুলোর দখলে। এ ছাড়া বিক্রি হচ্ছে আমদানিকৃত ওয়াশিং মেশিনসহ অন্যান্য ইলেকট্রনিক্স পণ্য।

 

মোটরগাড়ির যন্ত্রাংশ আমদানিও বেড়েছে। দেশে সব ধরনের ইলেকট্রনিক্স পণ্য উৎপাদন হলেও থেমে নেই এসব পণ্য আমদানি। এসব পণ্য আমদানির জন্য এলসি খোলা হচ্ছে প্রকৃত মূল্যের চার ভাগের এক ভাগ দাম দেখিয়ে। বাকি অর্থ পাঠানো হচ্ছে হুন্ডিতে। রাজধানীর নবাবপুরে বিক্রি হচ্ছে এসব পণ্য। ওয়াশিংটনভিত্তিক গবেষণা ও পরামর্শক প্রতিষ্ঠান গ্লোবাল ফিন্যান্সিশয়াল ইন্টেগ্রিটির (জিএফআই) প্রতিবেদন অনুযায়ী, বাণিজ্যের ক্ষেত্রে আন্ডার ইনভয়েসিং এবং ওভার ইনভয়েসিংয়ের কারণে বাংলাদেশের সঙ্গে বহির্বিশ্বের বছরে গড়ে ৭৫৩ কোটি ডলারের গরমিল রয়েছে। স্থানীয় মুদ্রায় যার পরিমাণ ৬০ হাজার কোটি টাকা।

Tag :

Write Your Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Save Your Email and Others Information

About Author Information

Robiul Islam

জনপ্রিয় সংবাদ

চোখ লাফানোও হতে পারে মারাত্মক অসুখ

বিলাসী পণ্যে ঠেকানো যাচ্ছে না হুন্ডি

আপডেট টাইম : 08:10:06 am, Thursday, 23 February 2023

নিউজ ডেস্ক: গাড়ি, মোটরসাইকেল, মোটর পার্টস, ইলেকট্রনিক্স সামগ্রী, বিভিন্ন ফলসহ বিলাসী পণ্য আমদানির নামে হুন্ডিতে টাকা পাঠানোর কারণে সর্বনাশ হচ্ছে অর্থনীতির। অল্প টাকার এলসি খুলে হুন্ডিতে বাকি টাকা পাঠানোর কারণে শিল্পকারখানার এলসিতে জটিলতা তৈরি হচ্ছে। নবাবপুরের ইলেকট্রনিক্স মার্কেটে ও গাড়ির বাজারেও একই ধরনের অভিযোগ উঠছে। ফল আমদানিতে অর্থ পাচার হচ্ছে ওভার ইনভয়েসিংয়ের মাধ্যমে।

 

প্রতিবেশী দেশের সঙ্গে তুলনা করলে দেখা যায়, ফল আমদানিতে প্রকৃত মূল্যের ২০ থেকে ২০০ ভাগ পর্যন্ত অতিরিক্ত দেখিয়ে এলসি করা হচ্ছে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এসব হুন্ডি বন্ধ করা গেলে সংকট অনেকটা কেটে যাবে। বর্তমান কঠিন অর্থনীতিতে ডলারের অভাবে শিল্পকারখানা মালিকরা এলসি খুলতে পারছেন না। স্বাভাবিক ব্যবসা-বাণিজ্য থমকে যাচ্ছে। অনেকে ব্যাংক ঋণ নিয়ে শিল্পকারখানা গড়ে তোলার জন্য এলসির অভাবে মালামাল আনতে পারছেন না। অন্যদিকে ইলেকট্রনিক্স সামগ্রী আমদানির নামে টাকা পাচার হচ্ছে। এভাবে শিল্প স্থাপনে ব্যাঘাত হলে এবং কাঁচামালের অভাবে কলকারখানা বন্ধ হয়ে গেলে শ্রমিকরা চাকরি হারাবে। এতে দেশে তৈরি হবে অস্থিতিশীলতা।

 

জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) অধীন শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদফতরের তথ্য বলছে, গত বছরের সেপ্টেম্বর ও অক্টোবরে চট্টগ্রাম ও মোংলা কাস্টম হাউস দিয়ে মিথ্যা ঘোষণার মাধ্যমে আনা সাত-আটটি চালানের কাগজপত্র জব্দ করেছেন গোয়েন্দারা। মিথ্যা ঘোষণায় আমদানি গাড়ির বেশির ভাগই বিলাসবহুল, দামি এবং নতুন। এসব গাড়ি আমদানিতে ৩০ থেকে ৫০ শতাংশ পর্যন্ত কম মূল্য দেখিয়ে টাকা পাচারের অভিযোগ উঠেছে। যুক্তরাজ্য থেকে থেকে নতুন মডেলের ১৩৩২ সিসির একটি মার্সিডিজ বেঞ্জ জিপ আমদানিকারক মূল্য ঘোষণা করেছেন ২৯ লাখ টাকা। কাস্টমস পরীক্ষা করে দেখেছে, আন্তর্জাতিক বাজারে গাড়িটির দাম প্রায় ৪০ লাখ টাকা। আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান ২০০০ সিসির গাড়ির মূল্য ঘোষণা করে ৪১ লাখ টাকা। গোয়েন্দারা বলেছেন, গাড়িটির শুল্কায়নযোগ্য মূল্য প্রায় ৫০ লাখ টাকা।

 

শুল্ক গোয়েন্দার তদন্তে এ রকম ৩০-৪০টি গাড়ি আমদানিতে টাকা পাচারের ঘটনা বেরিয়ে এসেছে। কয়েকটি প্রতিষ্ঠান ৮ থেকে ১০টি চালানে এসব গাড়ি এনেছে যুক্তরাজ্য, সিঙ্গাপুর ও জার্মানি থেকে। গাড়ি ব্যবসায়ীরা জানান, দেশে আমদানি করা গাড়ির ২০ শতাংশ নতুন। গত বছর দেশে প্রায় ২৫ হাজার গাড়ি আমদানি হয়। এর মধ্যে ৫ হাজার নতুন গাড়ি আনা হয় জার্মানি, যুক্তরাজ্য, সিঙ্গাপুরসহ অন্যান্য দেশ থেকে। কিছু নতুন গাড়ি আসে জাপান থেকে। বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর আবদুর রউফ তালুকদার এক অনুষ্ঠানে জানিয়েছেন, ১ লাখ ডলারের মার্সিডিজের দাম ঘোষণা করা হয় মাত্র ২০ হাজার ডলার। বাকি অর্থ পাঠানো হয় হুন্ডিতে।

 

এ বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর সালেহউদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘অভিনব কৌশলে অর্থ পাচার হচ্ছে। অর্থ পাচার রোধে বিলাসবহুল গাড়ি, ইলেকট্রনিক্স সামগ্রী, ফল আমদানি সম্পূর্ণ বন্ধ রাখতে হবে। এগুলো অপরিহার্য় কোনো পণ্য নয় যে আমদানি বন্ধ রাখলে ক্ষতি হবে। রপ্তানি, রেমিট্যান্স ও বিদেশি বিনিয়োগ না বাড়ালে এ সংকট শিগগির কাটবে না।’

 

জাতীয় রাজস্ব বোর্ড-এনবিআর সূত্র বলছেন, বিদেশি ফল আমদানির আড়ালে অর্থ পাচারের রেকর্ড তৈরি করেছে একশ্রেণির অসাধু ব্যবসায়ী। ২০২২ সালে ৫ হাজার ১৭ কোটি টাকার ফল আমদানি হয়েছে; যা আগের বছরের চেয়ে প্রায় ৯৭ শতাংশ বেশি। ২০২১ সালে যা ছিল ২ হাজার ৫৫০ কোটি টাকা।

 

এনবিআরসূত্র বলছেন, ফল আমদানিতে মিথ্যা ঘোষণা দিয়ে অর্থ পাচার হচ্ছে। ফল আমদানি নিরুৎসাহ করতে আমদানি শুল্ক বাড়ানোর জন্য বাণিজ্য মন্ত্রণালয় বেশ কয়েকবার উদ্যোগ নিলেও এখনো কার্যকর হয়নি। এ পরিস্থিতিতে ফল আমদানি বন্ধ রাখার পরামর্শ দিয়েছেন ব্যবসায়ী ও অর্থনীতিবিদরা।

 

শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদফতর সূত্র জানান, ফল আমদানির এলসি খোলা হলেও এসেছে সিগারেট। এলসি খোলা হয়েছে ৩ হাজার ডলারের (প্রায় ২ লাখ ৪০ হাজার টাকা), কিন্তু আমদানি করা হয়েছে প্রায় ৩ কোটি টাকার। আরব আমিরাতে পাচার করা হয়েছে সেই টাকা। নামসর্বস্ব প্রতিষ্ঠানের নামে খোলা হিসাব যাচাই-বাছাই না করে এলসি করে পাঠাচ্ছে ব্যাংকগুলো। প্রতিবারই ফল আমদানির নাম করে পাঠানো হয়েছে টাকা। আর আমদানি করা হয়েছে সিগারেট।

 

এ বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর আবদুর রউফ তালুকদার বলেন, বেশি দামের পণ্য কম দামে এলসি খুলে বাকি অর্থ হুন্ডিতে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। আমদানি করা বিভিন্ন পণ্যে ২০ থেকে ২০০ শতাংশ পর্যন্ত ওভার ইনভয়েস (আমদানি মূল্য বাড়িয়ে দেখানো) হয়েছে। ভারত থেকে আঙুর আমদানিতে এলসি খোলা হচ্ছে প্রতি কেজি ৯০ সেন্ট, সবুজ কমলা ও আনার ৭০ সেন্ট কেজিতে এলসি খোলা হচ্ছে। যেখানে ভারতের বাজারে সবচেয়ে ভালো মানের প্রতি কেজি আঙুর বিক্রি হচ্ছে গড়ে ৬০ রুপি, কমলা ৫০ রুপি। প্রতিবেশী দেশের সঙ্গে তুলনা করলে দেখা যায়, আঙুর, কমলা ও আনার বেশি দামে আমদানি করা হচ্ছে। দক্ষিণ আফ্রিকা, ব্রাজিল, নিউজিল্যান্ড ও আর্জেন্টিনা থেকে আপেল আমদানি করা হচ্ছে অতিরিক্ত দাম উল্লেখ করে। ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআইয়ের সাবেক সভাপতি শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ‘আমাদের দেশে এখন অনেক ফল উৎপাদন হচ্ছে। বিশেষ করে যেসব ফল আমদানি করা হচ্ছে, এগুলোও চাষ হচ্ছে। এখন দেশে উৎপাদিত ফল দিয়ে চাহিদা মেটানো সম্ভব। তাই চলমান সংকটের মধ্যে ফল আমদানি বন্ধ রাখা হোক।’

 

দেশে কনজিউমার ডিউরেবলস বা দীর্ঘমেয়াদে ব্যবহার্য ইলেকট্রনিক্স পণ্যের বাজার ক্রমেই বড় হচ্ছে। গত পাঁচ বছরে এসব পণ্যের আমদানি বেড়েছে উল্লেখযোগ্য হারে। এর মধ্যে টিভি, ফ্রিজ ও এসি এবং মোটরসাইকেলের আমদানিও বেড়েছে। ২০২২ সালে মোটরসাইকেল আমদানি বেড়েছে আগের বছরের চেয়ে প্রায় ২০ শতাংশ। গত বছর আমদানি ও বিক্রি হয়েছে প্রায় ৫ লাখ ৯০ হাজার মোটরসাইকেল, যা আগের বছরের তুলনায় প্রায় ১ লাখ বেশি।

 

দেশে টেলিভিশন, এয়ারকন্ডিশনার ও রেফ্রিজারেটর কোম্পানিগুলোর চাহিদা মেটানোর সক্ষমতা থাকলেও এসব পণ্যও আমদানি করা হচ্ছে। দেশে ৬ হাজার কোটি টাকার রেফ্রিজারেটরের চাহিদা থাকলেও আমদানি করা ফ্রিজ বিক্রি হচ্ছে ১ হাজার ৩৮০ কোটি টাকার। ৬ হাজার ৫০০ কোটি টাকার এয়াকন্ডিশনারের বাজারের ৩০ শতাংশ রয়েছে বিদেশি কোম্পানিগুলোর দখলে। ৩ হাজার ৫০০ কোটি টাকার টেলিভিশন বাজারের একটি অংশ বিদেশি কোম্পানিগুলোর দখলে। এ ছাড়া বিক্রি হচ্ছে আমদানিকৃত ওয়াশিং মেশিনসহ অন্যান্য ইলেকট্রনিক্স পণ্য।

 

মোটরগাড়ির যন্ত্রাংশ আমদানিও বেড়েছে। দেশে সব ধরনের ইলেকট্রনিক্স পণ্য উৎপাদন হলেও থেমে নেই এসব পণ্য আমদানি। এসব পণ্য আমদানির জন্য এলসি খোলা হচ্ছে প্রকৃত মূল্যের চার ভাগের এক ভাগ দাম দেখিয়ে। বাকি অর্থ পাঠানো হচ্ছে হুন্ডিতে। রাজধানীর নবাবপুরে বিক্রি হচ্ছে এসব পণ্য। ওয়াশিংটনভিত্তিক গবেষণা ও পরামর্শক প্রতিষ্ঠান গ্লোবাল ফিন্যান্সিশয়াল ইন্টেগ্রিটির (জিএফআই) প্রতিবেদন অনুযায়ী, বাণিজ্যের ক্ষেত্রে আন্ডার ইনভয়েসিং এবং ওভার ইনভয়েসিংয়ের কারণে বাংলাদেশের সঙ্গে বহির্বিশ্বের বছরে গড়ে ৭৫৩ কোটি ডলারের গরমিল রয়েছে। স্থানীয় মুদ্রায় যার পরিমাণ ৬০ হাজার কোটি টাকা।