Dhaka , Monday, 15 July 2024

অস্ট্রেলিয়ায় মৃত্তিকা বিজ্ঞানী ড. গাউছ আজম সম্মানিত

  • Robiul Islam
  • আপডেট টাইম : 08:11:18 am, Sunday, 12 March 2023
  • 31 বার

প্রবাস ডেস্ক: বাংলাদেশি বংশোদ্ভুত মৃত্তিকা বিজ্ঞানী ড. গাউছ আজমকে ওয়েস্টার্ন অস্ট্রেলিয়ার গ্রেইন রিসার্চ এন্ড ডেভেলপমেন্ট কর্পোরেশন (GRDC) রিকগনাইজিং অ্যান্ড রিওয়ার্ডিং এক্সসেলেনেন্স অ্যাওয়ার্ডে ভূষিত করে।

মৃত্তিকা বিজ্ঞানী ড. গাউছ আজম ওয়েস্টার্ন অস্ট্রেলিয়ার ডিপার্টমেন্ট অফ প্রাইমারি ইন্ডাস্ট্রিস অ্যান্ড রেজিওনাল ডেভেলপমেন্টে (DPIRD) ২২ মিলিয়ন ডলারের একটি প্রজেক্টের প্রধান গবেষক হিসেবে কাজ করেন যেখানে ১২ মিলিয়ন হেক্টর জমি গবেষণার জন্য বেছে নেয়া হয়েছিল। তার প্রধান গবেষণার বিষয় ছিল মাটিতে এসিডিটি, ক্ষারতা ও সোডিয়ামের মাত্রা এবং পানির স্বল্পতার বিপরীতে উন্নত ফসল উৎপাদন ও পাশাপাশি অস্ট্রেলিয়ার কৃষকদেরকে ফসল উৎপাদনে ব্যাপক সাহায্য করা।

GRDC ওয়েস্টার্ন প্যানেলের প্রধান ডারিন লি বলেন, “ড. গাউছের দেয়া প্রযুক্তির প্রয়োগ অস্ট্রেলিয়ার গ্রেইন (ধান, গম, ভুট্টা ও অন্যান্য ফসল) কৃষকরা সরাসরি উপকৃত হচ্ছে বলে প্রমাণিত। আমি তার মৃত্তিকার রি-ইঞ্জিনিয়ারিং প্রযুক্তির প্রয়োগে বিস্মিত।”

ড. গাউছ আজম বলেন, বাবার কাছ থেকে উৎসাহ পেয়ে আমি কৃষকদের উন্নত প্রযুক্তি দিয়ে তাদের পাশে দাঁড়িয়েছি। শুধু অস্ট্রেলিয়াতে না, বাংলাদেশেও আমার প্রযুক্তি দিয়ে সাহায্য করবো। আমার প্রজেক্টে ১৭ জন কৃষি বিশেষজ্ঞ কাজ করছেন তাদের মধ্যে ৫ জন বাংলাদেশি রয়েছেন।

Tag :

Write Your Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Save Your Email and Others Information

About Author Information

Robiul Islam

জনপ্রিয় সংবাদ

অস্ট্রেলিয়ায় মৃত্তিকা বিজ্ঞানী ড. গাউছ আজম সম্মানিত

আপডেট টাইম : 08:11:18 am, Sunday, 12 March 2023

প্রবাস ডেস্ক: বাংলাদেশি বংশোদ্ভুত মৃত্তিকা বিজ্ঞানী ড. গাউছ আজমকে ওয়েস্টার্ন অস্ট্রেলিয়ার গ্রেইন রিসার্চ এন্ড ডেভেলপমেন্ট কর্পোরেশন (GRDC) রিকগনাইজিং অ্যান্ড রিওয়ার্ডিং এক্সসেলেনেন্স অ্যাওয়ার্ডে ভূষিত করে।

মৃত্তিকা বিজ্ঞানী ড. গাউছ আজম ওয়েস্টার্ন অস্ট্রেলিয়ার ডিপার্টমেন্ট অফ প্রাইমারি ইন্ডাস্ট্রিস অ্যান্ড রেজিওনাল ডেভেলপমেন্টে (DPIRD) ২২ মিলিয়ন ডলারের একটি প্রজেক্টের প্রধান গবেষক হিসেবে কাজ করেন যেখানে ১২ মিলিয়ন হেক্টর জমি গবেষণার জন্য বেছে নেয়া হয়েছিল। তার প্রধান গবেষণার বিষয় ছিল মাটিতে এসিডিটি, ক্ষারতা ও সোডিয়ামের মাত্রা এবং পানির স্বল্পতার বিপরীতে উন্নত ফসল উৎপাদন ও পাশাপাশি অস্ট্রেলিয়ার কৃষকদেরকে ফসল উৎপাদনে ব্যাপক সাহায্য করা।

GRDC ওয়েস্টার্ন প্যানেলের প্রধান ডারিন লি বলেন, “ড. গাউছের দেয়া প্রযুক্তির প্রয়োগ অস্ট্রেলিয়ার গ্রেইন (ধান, গম, ভুট্টা ও অন্যান্য ফসল) কৃষকরা সরাসরি উপকৃত হচ্ছে বলে প্রমাণিত। আমি তার মৃত্তিকার রি-ইঞ্জিনিয়ারিং প্রযুক্তির প্রয়োগে বিস্মিত।”

ড. গাউছ আজম বলেন, বাবার কাছ থেকে উৎসাহ পেয়ে আমি কৃষকদের উন্নত প্রযুক্তি দিয়ে তাদের পাশে দাঁড়িয়েছি। শুধু অস্ট্রেলিয়াতে না, বাংলাদেশেও আমার প্রযুক্তি দিয়ে সাহায্য করবো। আমার প্রজেক্টে ১৭ জন কৃষি বিশেষজ্ঞ কাজ করছেন তাদের মধ্যে ৫ জন বাংলাদেশি রয়েছেন।