Dhaka , Tuesday, 23 April 2024

সম্মানিত মেহমান রমজান আসছে

  • Robiul Islam
  • আপডেট টাইম : 08:09:28 am, Wednesday, 22 March 2023
  • 33 বার

ইসলাম ডেস্ক: ঘোর অন্ধকার পেরিয়ে আমরা এখন প্রভুর করুণায় সিক্ত। আর একদিন পরই আমাদের মধ্যে আসবে এক সম্মানিত মেহমান। মাহে রমজান। আল্লাহর দরবারে লাখো কোটি শুকরিয়া তিনি আমাদের আরেকটি রমজান যাপনের সৌভাগ্যের দিকে এগিয়ে নিচ্ছেন। রসুল (সা.)-এর সুরে সুর মিলিয়ে আমরাও দোয়া করছি, ‘ওয়া বাল্লিগনা ইলা রামাদান! হে আল্লাহ! আমাদের জীবন রমজান পর্যন্ত দীর্ঘ করে দিন।’

রসুল (সা.) এ দোয়া পড়তেন রজবের চাঁদ দেখার পরপরই। দুই মাস আগে থেকে তিনি রমজানের অপেক্ষায় থাকতেন। আর রমজান এলে তাঁর ইবাদতে জোয়ার আসত। এই যে তাঁর অধীর অপেক্ষার দৃশ্য হাদিসের কিতাবে অক্ষরের তুলিতে আঁকা আছে, তা দেখে একটি দৃশ্য চোখের সামনে ভেসে ওঠে। একটু খোলাসা করেই বলি। আমাদের প্রতেক্যের বন্ধু-স্বজন আছে। সব বন্ধু-স্বজনের সঙ্গে আমরা সমান আচরণ করি না। এক বন্ধু আছে সকাল বিকাল তার সঙ্গে দেখা হয়। চায়ের বিল দিতে দিতে ত্যক্তবিরক্ত হয়ে গেছি। পাঁচটি টাকাই তো মাত্র। তবু কেন যেন ওই বন্ধুর চায়ের বিল দিতে ভিতর থেকে আনন্দ পাই না। আরেক বন্ধু আছে যার সঙ্গে দেখা হলে চা না খাইয়ে ছাড়তে চাই না। কখনো যদি খুব তাড়া থাকে তবু জোর অনুরোধ করি বলি, চা তোমাকে খেয়ে যেতেই হবে, নয়তো আমি রাগ করব। এ দুই ধরনের বাইরেও আরেক ধরনের বন্ধু আছে আমাদের। যার সঙ্গে সচরাচর দেখা হয় না।

সেই যে ছোটবেলায় একসঙ্গে মাদরাসায় পড়েছি, তারপর বন্ধু চলে গেল দেশের বাইরে। বহু বছর যোগাযোগ নেই, খবর নেই। তার কথা মনেও পড়ে না খুব একটা। কেবল মাঝেমধ্যে স্মৃতির আয়নায় যখন শৈশবের সোনালি দিনগুলো হাতছানি দেয়, তখন ওই বন্ধুর মুখটিই বড় করে বারবার ভেসে ওঠে। খুব ইচ্ছা করে আবার ফিরে যাই শৈশবের আনন্দমাখা দিনে। যেখানে সকাল শুরু হতো মক্তবের সবকে। যেদিন ঘুম থেকে দেরি করে উঠতাম, দেখতাম বন্ধু এসে দুয়ারে দাঁড়িয়ে আছে। আমাকে দেখেই সদ্য ঘুমভাঙা চেহারায় ফিক করে হেসে বলত, কীরে মক্তবে যাবি না? ঘুম ঘুম চোখে বলতাম দোস্ত! দুই মিনিট দাঁড়া। রেডি হয়ে আসছি।

আবার যেদিন আমি আগে উঠতাম, বন্ধুর দুয়ারে গিয়ে ডেকে তুলতাম। হায়! কোথায় আমার সেই মক্তবে যাওয়ার বন্ধুটি! একদিন ফেসবুক স্ক্রল করতে করতে দেখি সেই বন্ধুর আইডি। হঠাৎ হৃদয়টা ঝঙ্কার দিয়ে উঠল। আনন্দে নেচে উঠল ভিতরের ছোট্ট শিশুটি। বন্ধুকে মেসেজ দিলাম। কুশল বিনিময় শেষে বললাম, কবে দেশে আসবা? বন্ধু বলল, মাস দুয়েক পর। সেই থেকে বন্ধুর জন্য অপেক্ষা। কাজের ব্যস্ততায় যতই হারিয়ে যাই, দুই মাস পর বন্ধুর সঙ্গে দেখা করার সময় এখন থেকেই বের করার পরিকল্পনা সাজাতে থাকি। যথারীতি বন্ধুর সঙ্গে দেখা হলো। সালাম। মুসাফাহা। কোলাকুলি। দীর্ঘ কোলাকুলি। তারপর বসে সে কি আলাপ। মক্তবের দিনগুলোর কথা। মাদরাসার স্মৃতি। শৈশবের দুষ্টামি। নদীতে সাঁতার। খালে ডুব। বিলে শাপলা তোলা। পুকুরে মাছ ধরা। আহা! কত কথাই না হলো আমাদের।

একসময় বন্ধু বলল, এখন তাহলে উঠি দোস্ত! আমি বললাম, চারটা ডাল-ভাত খেয়ে না গেলে ছোটবেলার মতো গুরুম গুরুম কিল বসিয়ে দেব পিঠে! বন্ধু খেতে বসল। কিন্তু খেতে বসে বন্ধুর চোখ ছানাবড়া। ডাল-ভাতের বদলে সামনে পোলাও-কোরমা, রোস্ট, রেজালা, কালিয়া, কোপ্তা, দই, মিষ্টি, পায়েস- এক কথায় এলাহি ভোজ। এই যে বিশেষ বন্ধুটিকে এত বছর পর কাছে পেয়ে বিশেষ আয়োজন এমন আচরণই নবী (সা.) করেছেন মাহে রমজানের সঙ্গে।

দীর্ঘ এক বছর পর মাহে রমজান আসছে। দুই মাস আগে রসুল (সা.) প্রস্তুতি নিতে শুরু করেন। শাবান এলে নফল রোজার পরিমাণ বাড়িয়ে দেন। যাকে দেখেন তাকেই জিজ্ঞেস করেন, তুমি শাবানের রোজা রেখেছ তো? সাহাবি যদি বলতেন রাখিনি। রসুল (সা.) বলতেন, ঠিক আছে পরে রেখে দিও। আম্মাজান আয়শা (রা.) বলেন, ‘রসুল (সা.) শাবান ছাড়া আর কোনো মাসেই এত বেশি নফল রোজা রাখতেন না। অন্য বর্ণনায় এসেছে, রসুল (সা.) শাবানের পুরো মাসই নফল রোজা রেখে দিতেন। মাহে রমজানে রসুল (সা.)-এর কোরআন তিলাওয়াতের পরিমাণ বেড়ে যেত। বড় হয়ে যেত দানের হাত।’

ইমাম বুখারি তাঁর সহি বুখারিতে বর্ণনা করেন, ‘রসুল (সা.) রমজানে প্রবাহিত বাতাসের মতো অনবরত দান করতেন। জিবরাইল (আ.)-কে কোরআন তিলাওয়াত করে শোনাতেন। জিবরাইল (আ.)ও রসুল (সা.)-কে কোরআন তিলাওয়াত করে শোনাতেন।’ ইমাম বায়হাকি বর্ণনা করেন, হজরত সালমান ফারসি (রা.) বলেন, ‘একবার শাবানের শেষ দিন রসুল (সা.) আমাদের মাঝে ভাষণ দিলেন। খুব দরদি ভাষায় তিনি বললেন, হে মানুষ! তোমাদের মধ্যে একটি সম্মানিত মাস এসেছে। এ মাসে একটি রাত আছে যা হাজার মাসের চেয়ে উত্তম।

এ মাসে দিনে রোজা পালন করা ফরজ এবং রাতে কিয়াম করা নফল। এ মাসে একটি নফল ইবাদত ফরজের সমান এবং একটি ফরজ ইবাদত ৭০টি ফরজের সমান বিবেচনা করা হয়। এ মাসের প্রথম দিকে রহমত, মধ্যভাগে ক্ষমা এবং শেষ দিকে রয়েছে জাহান্নাম থেকে মুক্তি।’ হে আল্লাহ! মাহে রমজানের পূর্ণ বরকত লাভের তৌফিক আপনি আমাদের দিন।

Tag :

Write Your Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Save Your Email and Others Information

About Author Information

Robiul Islam

সম্মানিত মেহমান রমজান আসছে

আপডেট টাইম : 08:09:28 am, Wednesday, 22 March 2023

ইসলাম ডেস্ক: ঘোর অন্ধকার পেরিয়ে আমরা এখন প্রভুর করুণায় সিক্ত। আর একদিন পরই আমাদের মধ্যে আসবে এক সম্মানিত মেহমান। মাহে রমজান। আল্লাহর দরবারে লাখো কোটি শুকরিয়া তিনি আমাদের আরেকটি রমজান যাপনের সৌভাগ্যের দিকে এগিয়ে নিচ্ছেন। রসুল (সা.)-এর সুরে সুর মিলিয়ে আমরাও দোয়া করছি, ‘ওয়া বাল্লিগনা ইলা রামাদান! হে আল্লাহ! আমাদের জীবন রমজান পর্যন্ত দীর্ঘ করে দিন।’

রসুল (সা.) এ দোয়া পড়তেন রজবের চাঁদ দেখার পরপরই। দুই মাস আগে থেকে তিনি রমজানের অপেক্ষায় থাকতেন। আর রমজান এলে তাঁর ইবাদতে জোয়ার আসত। এই যে তাঁর অধীর অপেক্ষার দৃশ্য হাদিসের কিতাবে অক্ষরের তুলিতে আঁকা আছে, তা দেখে একটি দৃশ্য চোখের সামনে ভেসে ওঠে। একটু খোলাসা করেই বলি। আমাদের প্রতেক্যের বন্ধু-স্বজন আছে। সব বন্ধু-স্বজনের সঙ্গে আমরা সমান আচরণ করি না। এক বন্ধু আছে সকাল বিকাল তার সঙ্গে দেখা হয়। চায়ের বিল দিতে দিতে ত্যক্তবিরক্ত হয়ে গেছি। পাঁচটি টাকাই তো মাত্র। তবু কেন যেন ওই বন্ধুর চায়ের বিল দিতে ভিতর থেকে আনন্দ পাই না। আরেক বন্ধু আছে যার সঙ্গে দেখা হলে চা না খাইয়ে ছাড়তে চাই না। কখনো যদি খুব তাড়া থাকে তবু জোর অনুরোধ করি বলি, চা তোমাকে খেয়ে যেতেই হবে, নয়তো আমি রাগ করব। এ দুই ধরনের বাইরেও আরেক ধরনের বন্ধু আছে আমাদের। যার সঙ্গে সচরাচর দেখা হয় না।

সেই যে ছোটবেলায় একসঙ্গে মাদরাসায় পড়েছি, তারপর বন্ধু চলে গেল দেশের বাইরে। বহু বছর যোগাযোগ নেই, খবর নেই। তার কথা মনেও পড়ে না খুব একটা। কেবল মাঝেমধ্যে স্মৃতির আয়নায় যখন শৈশবের সোনালি দিনগুলো হাতছানি দেয়, তখন ওই বন্ধুর মুখটিই বড় করে বারবার ভেসে ওঠে। খুব ইচ্ছা করে আবার ফিরে যাই শৈশবের আনন্দমাখা দিনে। যেখানে সকাল শুরু হতো মক্তবের সবকে। যেদিন ঘুম থেকে দেরি করে উঠতাম, দেখতাম বন্ধু এসে দুয়ারে দাঁড়িয়ে আছে। আমাকে দেখেই সদ্য ঘুমভাঙা চেহারায় ফিক করে হেসে বলত, কীরে মক্তবে যাবি না? ঘুম ঘুম চোখে বলতাম দোস্ত! দুই মিনিট দাঁড়া। রেডি হয়ে আসছি।

আবার যেদিন আমি আগে উঠতাম, বন্ধুর দুয়ারে গিয়ে ডেকে তুলতাম। হায়! কোথায় আমার সেই মক্তবে যাওয়ার বন্ধুটি! একদিন ফেসবুক স্ক্রল করতে করতে দেখি সেই বন্ধুর আইডি। হঠাৎ হৃদয়টা ঝঙ্কার দিয়ে উঠল। আনন্দে নেচে উঠল ভিতরের ছোট্ট শিশুটি। বন্ধুকে মেসেজ দিলাম। কুশল বিনিময় শেষে বললাম, কবে দেশে আসবা? বন্ধু বলল, মাস দুয়েক পর। সেই থেকে বন্ধুর জন্য অপেক্ষা। কাজের ব্যস্ততায় যতই হারিয়ে যাই, দুই মাস পর বন্ধুর সঙ্গে দেখা করার সময় এখন থেকেই বের করার পরিকল্পনা সাজাতে থাকি। যথারীতি বন্ধুর সঙ্গে দেখা হলো। সালাম। মুসাফাহা। কোলাকুলি। দীর্ঘ কোলাকুলি। তারপর বসে সে কি আলাপ। মক্তবের দিনগুলোর কথা। মাদরাসার স্মৃতি। শৈশবের দুষ্টামি। নদীতে সাঁতার। খালে ডুব। বিলে শাপলা তোলা। পুকুরে মাছ ধরা। আহা! কত কথাই না হলো আমাদের।

একসময় বন্ধু বলল, এখন তাহলে উঠি দোস্ত! আমি বললাম, চারটা ডাল-ভাত খেয়ে না গেলে ছোটবেলার মতো গুরুম গুরুম কিল বসিয়ে দেব পিঠে! বন্ধু খেতে বসল। কিন্তু খেতে বসে বন্ধুর চোখ ছানাবড়া। ডাল-ভাতের বদলে সামনে পোলাও-কোরমা, রোস্ট, রেজালা, কালিয়া, কোপ্তা, দই, মিষ্টি, পায়েস- এক কথায় এলাহি ভোজ। এই যে বিশেষ বন্ধুটিকে এত বছর পর কাছে পেয়ে বিশেষ আয়োজন এমন আচরণই নবী (সা.) করেছেন মাহে রমজানের সঙ্গে।

দীর্ঘ এক বছর পর মাহে রমজান আসছে। দুই মাস আগে রসুল (সা.) প্রস্তুতি নিতে শুরু করেন। শাবান এলে নফল রোজার পরিমাণ বাড়িয়ে দেন। যাকে দেখেন তাকেই জিজ্ঞেস করেন, তুমি শাবানের রোজা রেখেছ তো? সাহাবি যদি বলতেন রাখিনি। রসুল (সা.) বলতেন, ঠিক আছে পরে রেখে দিও। আম্মাজান আয়শা (রা.) বলেন, ‘রসুল (সা.) শাবান ছাড়া আর কোনো মাসেই এত বেশি নফল রোজা রাখতেন না। অন্য বর্ণনায় এসেছে, রসুল (সা.) শাবানের পুরো মাসই নফল রোজা রেখে দিতেন। মাহে রমজানে রসুল (সা.)-এর কোরআন তিলাওয়াতের পরিমাণ বেড়ে যেত। বড় হয়ে যেত দানের হাত।’

ইমাম বুখারি তাঁর সহি বুখারিতে বর্ণনা করেন, ‘রসুল (সা.) রমজানে প্রবাহিত বাতাসের মতো অনবরত দান করতেন। জিবরাইল (আ.)-কে কোরআন তিলাওয়াত করে শোনাতেন। জিবরাইল (আ.)ও রসুল (সা.)-কে কোরআন তিলাওয়াত করে শোনাতেন।’ ইমাম বায়হাকি বর্ণনা করেন, হজরত সালমান ফারসি (রা.) বলেন, ‘একবার শাবানের শেষ দিন রসুল (সা.) আমাদের মাঝে ভাষণ দিলেন। খুব দরদি ভাষায় তিনি বললেন, হে মানুষ! তোমাদের মধ্যে একটি সম্মানিত মাস এসেছে। এ মাসে একটি রাত আছে যা হাজার মাসের চেয়ে উত্তম।

এ মাসে দিনে রোজা পালন করা ফরজ এবং রাতে কিয়াম করা নফল। এ মাসে একটি নফল ইবাদত ফরজের সমান এবং একটি ফরজ ইবাদত ৭০টি ফরজের সমান বিবেচনা করা হয়। এ মাসের প্রথম দিকে রহমত, মধ্যভাগে ক্ষমা এবং শেষ দিকে রয়েছে জাহান্নাম থেকে মুক্তি।’ হে আল্লাহ! মাহে রমজানের পূর্ণ বরকত লাভের তৌফিক আপনি আমাদের দিন।