Dhaka , Friday, 1 March 2024

সুদানের খার্তুম ছাড়লেন চার শতাধিক বাংলাদেশি

  • Robiul Islam
  • আপডেট টাইম : 08:06:18 am, Wednesday, 3 May 2023
  • 37 বার

নিউজ ডেস্ক: সুদানে সামরিক বাহিনী ও আধা সামরিক বাহিনীর মধ্যে সংঘাতের কারণে আটকে পড়া বাংলাদেশিদের সরিয়ে নেওয়া হচ্ছে। ইতোমধ্যে আটটি বাসে করে ৪ শতাধিক বাংলাদেশিকে দেশটির রাজধানী খার্তুম থেকে পোর্ট সুদানে নেওয়া হচ্ছে।

স্থানীয় সময় মঙ্গলবার (২ মে) সকাল সাড়ে ৮টায় তাদের নিয়ে বাসগুলো রওনা দেয়। খার্তুমে বাংলাদেশের ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রদূত তারেক আহমেদ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তারেক আহমেদ বলেন, এখানে আরও চারটি বাস প্রস্তুত আছে। আরও যেসব বাংলাদেশি আসছেন, তাদের নিয়ে বাসগুলো পরে রওনা দেবে।

গত রোববার (৩০ এপ্রিল) বিকেলে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে সুদান থেকে বাংলাদেশিদের ফেরত আনার বিষয়ে এক আন্তঃমন্ত্রণালয় বৈঠক হয়। বৈঠক শেষে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মো. শাহরিয়ার আলম জানিয়েছিলেন, সংঘাতপূর্ণ সুদান থেকে ৭০০ বাংলাদেশিকে নিরাপদে সরিয়ে নেওয়ার প্রক্রিয়া চূড়ান্ত করা হয়েছে।

তিনি জানান, সবকিছু ঠিক থাকলে মঙ্গলবার (২ মে) বাংলাদেশিদের খার্তুম থেকে বাসে করে ৮৫০ কিলোমিটার দূরে পোর্ট সুদানে নেওয়া হবে। সেখান থেকে সৌদি আরবের জাহাজে তাদের জেদ্দায় পৌঁছানো হবে। এরপর সেখান থেকে তাদের বিমানে করে দেশে ফেরত আনা হবে।

শাহরিয়ার আলম জানান, সুদানে প্রায় ১ হাজার ৫০০ বাংলাদেশি আছেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। ইতোমধ্যে ৭০০ বাংলাদেশি দেশে ফেরত আসার জন্য নিবন্ধন করেছেন।

প্রতিমন্ত্রী জানান, সুদানের বাংলাদেশিদের দেশে ফেরানোর প্রক্রিয়াটি তদারকি করার জন্য বাংলাদেশের ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রদূত তারেক আহমেদ এবং জেদ্দা মিশনের কর্মকর্তারা পোর্ট সুদানে অবস্থান করছেন।

এদিকে, এই সংঘাতের কারণে সুদানে থেকে ৮ লাখেরও বেশি মানুষ পালিয়ে যেতে পারে বলে আশঙ্কা করছে জাতিসংঘের শরণার্থী সংস্থা (ইউএনএইচসিআর)।

শাহরিয়ার আলম জানিয়েছেন, জেদ্দায় পৌঁছানোর পর বাংলাদেশিদের সাধারণ ফ্লাইটে করে ফেরত আনা হবে। যদি প্রয়োজন হয় চার্টার্ড ফ্লাইটেরও ব্যবস্থা করা হয়েছে। এজন্য বাংলাদেশ বিমান এবং বিমান বাহিনী উভয়ই প্রস্তুত আছে। সৌদি সরকার বাংলাদেশিদের ফেরত আনার জন্য জাহাজ দিচ্ছে এবং জেদ্দায় বাংলাদেশিদের থাকার জন্য হোটেলের ব্যবস্থা করবে।

তিনি আরও জানান, আমরা যখনই পারি, যতজনকে পারি নিয়ে আসব। নির্দিষ্ট সংখ্যক বাংলাদেশি না হলে পাঠাব না, বিষয়টি সেরকম নয়। প্লেনের ব্যবস্থা সাপেক্ষে তাদের দ্রুততম সময়ের মধ্যে ফেরত আনা হবে।

শাহরিয়ার আলম জানান, এখন পর্যন্ত ৩৫ জন বাংলাদেশি, যারা সৌদি আরব বা অন্য দেশের প্রতিষ্ঠানে কর্মরত ছিলেন, তারা কোম্পানিগুলোর উদ্যোগে নিরাপদ জায়গায় আছেন। তাদের মধ্যে ৩৪ জন জেদ্দায় এবং একজন সংযুক্ত আরব আমিরাতে পৌঁছেছেন।

উল্লেখ্য, গত ১৫ এপ্রিল থেকে সুদানে সামরিক ও আধা-সামরিক বাহিনীর মধ্যে সংঘাত চলছে। এতে এখন পর্যন্ত পাঁচ শতাধিক মানুষ নিহত ও হাজার হাজার মানুষ আহত হয়েছেন।

Tag :

Write Your Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Save Your Email and Others Information

About Author Information

Robiul Islam

জনপ্রিয় সংবাদ

সুদানের খার্তুম ছাড়লেন চার শতাধিক বাংলাদেশি

আপডেট টাইম : 08:06:18 am, Wednesday, 3 May 2023

নিউজ ডেস্ক: সুদানে সামরিক বাহিনী ও আধা সামরিক বাহিনীর মধ্যে সংঘাতের কারণে আটকে পড়া বাংলাদেশিদের সরিয়ে নেওয়া হচ্ছে। ইতোমধ্যে আটটি বাসে করে ৪ শতাধিক বাংলাদেশিকে দেশটির রাজধানী খার্তুম থেকে পোর্ট সুদানে নেওয়া হচ্ছে।

স্থানীয় সময় মঙ্গলবার (২ মে) সকাল সাড়ে ৮টায় তাদের নিয়ে বাসগুলো রওনা দেয়। খার্তুমে বাংলাদেশের ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রদূত তারেক আহমেদ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তারেক আহমেদ বলেন, এখানে আরও চারটি বাস প্রস্তুত আছে। আরও যেসব বাংলাদেশি আসছেন, তাদের নিয়ে বাসগুলো পরে রওনা দেবে।

গত রোববার (৩০ এপ্রিল) বিকেলে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে সুদান থেকে বাংলাদেশিদের ফেরত আনার বিষয়ে এক আন্তঃমন্ত্রণালয় বৈঠক হয়। বৈঠক শেষে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মো. শাহরিয়ার আলম জানিয়েছিলেন, সংঘাতপূর্ণ সুদান থেকে ৭০০ বাংলাদেশিকে নিরাপদে সরিয়ে নেওয়ার প্রক্রিয়া চূড়ান্ত করা হয়েছে।

তিনি জানান, সবকিছু ঠিক থাকলে মঙ্গলবার (২ মে) বাংলাদেশিদের খার্তুম থেকে বাসে করে ৮৫০ কিলোমিটার দূরে পোর্ট সুদানে নেওয়া হবে। সেখান থেকে সৌদি আরবের জাহাজে তাদের জেদ্দায় পৌঁছানো হবে। এরপর সেখান থেকে তাদের বিমানে করে দেশে ফেরত আনা হবে।

শাহরিয়ার আলম জানান, সুদানে প্রায় ১ হাজার ৫০০ বাংলাদেশি আছেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। ইতোমধ্যে ৭০০ বাংলাদেশি দেশে ফেরত আসার জন্য নিবন্ধন করেছেন।

প্রতিমন্ত্রী জানান, সুদানের বাংলাদেশিদের দেশে ফেরানোর প্রক্রিয়াটি তদারকি করার জন্য বাংলাদেশের ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রদূত তারেক আহমেদ এবং জেদ্দা মিশনের কর্মকর্তারা পোর্ট সুদানে অবস্থান করছেন।

এদিকে, এই সংঘাতের কারণে সুদানে থেকে ৮ লাখেরও বেশি মানুষ পালিয়ে যেতে পারে বলে আশঙ্কা করছে জাতিসংঘের শরণার্থী সংস্থা (ইউএনএইচসিআর)।

শাহরিয়ার আলম জানিয়েছেন, জেদ্দায় পৌঁছানোর পর বাংলাদেশিদের সাধারণ ফ্লাইটে করে ফেরত আনা হবে। যদি প্রয়োজন হয় চার্টার্ড ফ্লাইটেরও ব্যবস্থা করা হয়েছে। এজন্য বাংলাদেশ বিমান এবং বিমান বাহিনী উভয়ই প্রস্তুত আছে। সৌদি সরকার বাংলাদেশিদের ফেরত আনার জন্য জাহাজ দিচ্ছে এবং জেদ্দায় বাংলাদেশিদের থাকার জন্য হোটেলের ব্যবস্থা করবে।

তিনি আরও জানান, আমরা যখনই পারি, যতজনকে পারি নিয়ে আসব। নির্দিষ্ট সংখ্যক বাংলাদেশি না হলে পাঠাব না, বিষয়টি সেরকম নয়। প্লেনের ব্যবস্থা সাপেক্ষে তাদের দ্রুততম সময়ের মধ্যে ফেরত আনা হবে।

শাহরিয়ার আলম জানান, এখন পর্যন্ত ৩৫ জন বাংলাদেশি, যারা সৌদি আরব বা অন্য দেশের প্রতিষ্ঠানে কর্মরত ছিলেন, তারা কোম্পানিগুলোর উদ্যোগে নিরাপদ জায়গায় আছেন। তাদের মধ্যে ৩৪ জন জেদ্দায় এবং একজন সংযুক্ত আরব আমিরাতে পৌঁছেছেন।

উল্লেখ্য, গত ১৫ এপ্রিল থেকে সুদানে সামরিক ও আধা-সামরিক বাহিনীর মধ্যে সংঘাত চলছে। এতে এখন পর্যন্ত পাঁচ শতাধিক মানুষ নিহত ও হাজার হাজার মানুষ আহত হয়েছেন।