Dhaka , Saturday, 22 June 2024

দক্ষিণ কোরিয়ায় কর্মী নিয়োগে শিগগিরই লটারি সার্কুলার ঘোষণা

  • Robiul Islam
  • আপডেট টাইম : 08:16:47 am, Saturday, 20 May 2023
  • 41 বার

প্রবাস ডেস্ক: দক্ষিণ কোরিয়ায় এমপ্লয়মেন্ট পারমিট সিস্টেমে (ইপিএস) কর্মী নিয়োগে শিগগিরই লটারি সার্কুলার ঘোষণা করা হবে। সম্প্রতি এক বিজ্ঞপ্তিতে বাংলাদেশ ওভারসিজ এমপ্লয়মেন্ট অ্যান্ড সার্ভিসেস লিঃ (বোয়েসেল) এ তথ্য জানিয়েছে।

দক্ষিণ কোরিয়ায় শিল্পখাতে লটারির মাধ্যমে প্রতি বছর হাজার হাজার বাংলাদেশিকর্মী সরকারিভাবে যাওয়ার সুযোগ পাচ্ছেন। গত বছরের শেষ নাগাদ প্রায় পাঁচ হাজার দুইশত বাংলাদেশি কর্মী কোরিয়ায় গেছে। যা এরই মধ্যে অন্যান্য বছরের তুলনায় রেকর্ড সৃষ্টি করেছে। এ বছর প্রায় ৭৫০০ জন বাংলাদেশির দক্ষিণ কোরিয়া যাওয়ার সুযোগ আছে বলে জানিয়েছেন, ঢাকায় নিযুক্ত কোরীয় রাষ্ট্রদূত লি জাং কিউন।

তিনি বলেন, এছাড়াও অতিরিক্ত আরও ৫০০০ কর্মীসহ কৃষি ভিসায় মৌসুমী শ্রমিক পাঠানোর সুযোগতো থাকছেই। বর্তমানে নতুন করে বাংলাদেশ থেকে বেসরকারিভাবে ই-সেভেন ভিসায় প্রচুর বাংলাদেশি যাচ্ছে দক্ষিণ কোরিয়ায়। ফলে নতুন করে সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে বাংলাদেশিদের জন্য। তবে শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত বাংলাদেশ থেকে আরও বিপুল পরিমাণ কর্মী নিতে চায় দক্ষিণ কোরিয়া।

দক্ষিণ কোরিয়ায় আবেদনের যোগ্যতা:

১। শিক্ষাগত যোগ্যতা এসএসসি/সমমান; ২। পাসপোর্টের মেয়াদ হালনাগাদ থাকা সাপেক্ষে; ৩। এসএসসি/সমমান সনদ ও জাতীয় পরিচয়পত্রের সঙ্গে পাসপোর্টের মিল থাকা সাপেক্ষে; ৪। বয়স সীমা ১৮ থেকে ৩৯ বছর; ৫। E-9 ভিসায় Dirty Difficult Dangerous (3D) কাজ করতে সমস্যা নেই; ৬। যার কালার ব্লাইন্ডনেস বা রঙ বোঝার সক্ষমতার সমস্যা নেই; ৭। কোরীয় ভাষা পড়া, লেখা ও বোঝার পারদর্শিতা থাকতে হবে; ৮। মাদকাসক্ত/সিফিলিস শনাক্ত ব্যক্তিরা অযোগ্য বলে বিবেচিত হবেন।

এছাড়া, ৯। ফৌজদারি অপরাধে জেল বা অন্য কোনো শাস্তি হয়নি; ১০। যারা দক্ষিণ কোরিয়ায় অবৈধভাবে অবস্থান করেনি; ১১। যার ওপর বিদেশ যাত্রায় কোনো নিষেধাজ্ঞা নেই বা যেতে কোনো সমস্যা নেই এবং ১২। যারা ই-৯ বা ই-১০ ভিসায় কোরিয়াতে ৫ বছর বেশি থাকেনি।

বোয়েসেল জানিয়েছে, কর্মনিষ্ঠা, সততা ও নিয়মানুবর্তিতার কারণে বাংলাদেশের কর্মীরা এখন দক্ষিণ কোরিয়াতে জনপ্রিয়তার শীর্ষে। তাইতো দেশটিতে বাংলাদেশের কর্মীদের চাহিদা প্রতিনিয়ত বাড়ছে। দক্ষিণ কোরিয়া ও বাংলাদেশ সরকারের মধ্যে ২০০৭ সালে কর্মী নিয়োগের সমঝোতা চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। এই চুক্তির আওতায় ২০০৮ সাল থেকে দেশটিতে দক্ষ কর্মী পাঠানো শুরু করে বাংলাদেশ সরকার। তবে ধারণা করা হচ্ছে, মে মাসের শেষ সপ্তাহে লটারি সার্কুলার হওয়ার সম্ভাবনা আছে।

এছাড়া ও সংশ্লিষ্ট সবাইকে প্রস্তুতিসহ বিষয়টি বহুল প্রচারের আহ্বান জানিয়েছেন, বোয়েসেল কর্তৃপক্ষ। যাবতীয় তথ্য বোয়েসেলের লিঙ্কে গিয়ে হোমপেজে ক্লিক>>eps.boesl.gov.bd করলে পাবেন নতুবা ফেসবুক পেজেও পাওয়া যাবে। লটারি সার্কুলার হওয়ার পর, যাদের কম্পিউটার নেই কিন্তু নিজে নিজে মোবাইলের মাধ্যমে আবেদন করতে চান তারাও নির্ভুলভাবে আবেদন করতে পারবেন। এছাড়াও যেকোনো কম্পিউটারের দোকান থেকে নির্ভুলভাবে আবেদন করা যাবে।

Tag :

Write Your Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Save Your Email and Others Information

About Author Information

Robiul Islam

জনপ্রিয় সংবাদ

দক্ষিণ কোরিয়ায় কর্মী নিয়োগে শিগগিরই লটারি সার্কুলার ঘোষণা

আপডেট টাইম : 08:16:47 am, Saturday, 20 May 2023

প্রবাস ডেস্ক: দক্ষিণ কোরিয়ায় এমপ্লয়মেন্ট পারমিট সিস্টেমে (ইপিএস) কর্মী নিয়োগে শিগগিরই লটারি সার্কুলার ঘোষণা করা হবে। সম্প্রতি এক বিজ্ঞপ্তিতে বাংলাদেশ ওভারসিজ এমপ্লয়মেন্ট অ্যান্ড সার্ভিসেস লিঃ (বোয়েসেল) এ তথ্য জানিয়েছে।

দক্ষিণ কোরিয়ায় শিল্পখাতে লটারির মাধ্যমে প্রতি বছর হাজার হাজার বাংলাদেশিকর্মী সরকারিভাবে যাওয়ার সুযোগ পাচ্ছেন। গত বছরের শেষ নাগাদ প্রায় পাঁচ হাজার দুইশত বাংলাদেশি কর্মী কোরিয়ায় গেছে। যা এরই মধ্যে অন্যান্য বছরের তুলনায় রেকর্ড সৃষ্টি করেছে। এ বছর প্রায় ৭৫০০ জন বাংলাদেশির দক্ষিণ কোরিয়া যাওয়ার সুযোগ আছে বলে জানিয়েছেন, ঢাকায় নিযুক্ত কোরীয় রাষ্ট্রদূত লি জাং কিউন।

তিনি বলেন, এছাড়াও অতিরিক্ত আরও ৫০০০ কর্মীসহ কৃষি ভিসায় মৌসুমী শ্রমিক পাঠানোর সুযোগতো থাকছেই। বর্তমানে নতুন করে বাংলাদেশ থেকে বেসরকারিভাবে ই-সেভেন ভিসায় প্রচুর বাংলাদেশি যাচ্ছে দক্ষিণ কোরিয়ায়। ফলে নতুন করে সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে বাংলাদেশিদের জন্য। তবে শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত বাংলাদেশ থেকে আরও বিপুল পরিমাণ কর্মী নিতে চায় দক্ষিণ কোরিয়া।

দক্ষিণ কোরিয়ায় আবেদনের যোগ্যতা:

১। শিক্ষাগত যোগ্যতা এসএসসি/সমমান; ২। পাসপোর্টের মেয়াদ হালনাগাদ থাকা সাপেক্ষে; ৩। এসএসসি/সমমান সনদ ও জাতীয় পরিচয়পত্রের সঙ্গে পাসপোর্টের মিল থাকা সাপেক্ষে; ৪। বয়স সীমা ১৮ থেকে ৩৯ বছর; ৫। E-9 ভিসায় Dirty Difficult Dangerous (3D) কাজ করতে সমস্যা নেই; ৬। যার কালার ব্লাইন্ডনেস বা রঙ বোঝার সক্ষমতার সমস্যা নেই; ৭। কোরীয় ভাষা পড়া, লেখা ও বোঝার পারদর্শিতা থাকতে হবে; ৮। মাদকাসক্ত/সিফিলিস শনাক্ত ব্যক্তিরা অযোগ্য বলে বিবেচিত হবেন।

এছাড়া, ৯। ফৌজদারি অপরাধে জেল বা অন্য কোনো শাস্তি হয়নি; ১০। যারা দক্ষিণ কোরিয়ায় অবৈধভাবে অবস্থান করেনি; ১১। যার ওপর বিদেশ যাত্রায় কোনো নিষেধাজ্ঞা নেই বা যেতে কোনো সমস্যা নেই এবং ১২। যারা ই-৯ বা ই-১০ ভিসায় কোরিয়াতে ৫ বছর বেশি থাকেনি।

বোয়েসেল জানিয়েছে, কর্মনিষ্ঠা, সততা ও নিয়মানুবর্তিতার কারণে বাংলাদেশের কর্মীরা এখন দক্ষিণ কোরিয়াতে জনপ্রিয়তার শীর্ষে। তাইতো দেশটিতে বাংলাদেশের কর্মীদের চাহিদা প্রতিনিয়ত বাড়ছে। দক্ষিণ কোরিয়া ও বাংলাদেশ সরকারের মধ্যে ২০০৭ সালে কর্মী নিয়োগের সমঝোতা চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। এই চুক্তির আওতায় ২০০৮ সাল থেকে দেশটিতে দক্ষ কর্মী পাঠানো শুরু করে বাংলাদেশ সরকার। তবে ধারণা করা হচ্ছে, মে মাসের শেষ সপ্তাহে লটারি সার্কুলার হওয়ার সম্ভাবনা আছে।

এছাড়া ও সংশ্লিষ্ট সবাইকে প্রস্তুতিসহ বিষয়টি বহুল প্রচারের আহ্বান জানিয়েছেন, বোয়েসেল কর্তৃপক্ষ। যাবতীয় তথ্য বোয়েসেলের লিঙ্কে গিয়ে হোমপেজে ক্লিক>>eps.boesl.gov.bd করলে পাবেন নতুবা ফেসবুক পেজেও পাওয়া যাবে। লটারি সার্কুলার হওয়ার পর, যাদের কম্পিউটার নেই কিন্তু নিজে নিজে মোবাইলের মাধ্যমে আবেদন করতে চান তারাও নির্ভুলভাবে আবেদন করতে পারবেন। এছাড়াও যেকোনো কম্পিউটারের দোকান থেকে নির্ভুলভাবে আবেদন করা যাবে।