Dhaka , Friday, 24 May 2024

পরিবারের খুশির জন্য নিজের আনন্দ কুরবানি দেন প্রবাসীরা

  • Robiul Islam
  • আপডেট টাইম : 09:15:44 am, Friday, 30 June 2023
  • 43 বার

প্রবাস ডেস্ক: পরিবারের খুশির জন্য নিজের আনন্দ কুরবানি দেন প্রবাসীরা। শুধু তাই নয়, পরিবারের খরচের পাশাপাশি কোরবানির পশু কিনতে বাড়তি টাকা জোগাড় করতে আগে থেকে ওভার টাইম করে অথবা আগে থেকে অল্প অল্প করে টাকা জমিয়ে রাখেন।

কোরবানির ঈদ এলে পরিবারের খরচসহ পশু কেনার টাকা পাঠান পরিবারের মুখে হাসি ফোটাতে। অনেক প্রবাসী আছেন, যারা ঠিক সময়ে বেতন পান না, বেতন বকেয়া থাকে। তারা অন্যের কাছ থেকে ধারদেনা করে হলেও টাকা পাঠান দেশে। সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোতে ঈদের ছুটি থাকে, ওই সব প্রতিষ্ঠানের অল্প কিছু প্রবাসী ছুটি পেলেও ক্লিনিং, সিকিউরিটি, সুপারশপ, শপিং মলসহ বাসা-বাড়িতে যেসব প্রবাসীরা কাজ করেন তাদের ছুটি থাকে না। তাদের প্রতিদিনের মতো যথাসময়ে কাজ করতে হয়।

ঈদের জামাত শেষে কর্মস্থলে সহকর্মী যারা থাকেন অথবা আশপাশের প্রবাসীদের সঙ্গে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করেন তারা। দেখা যায়, বেশিরভাগ প্রবাসী নিজেরাই ব্যস্ত থাকে মোবাইল ফোনে চ্যাটে ও অন্যজনের সঙ্গে কলে। পাশের জনের খোঁজখবর নেওয়ার সময় থাকে না, অনেকেই আবার ভুলে যান কাজের ব্যস্ততায়। পরিবার-প্রিয়জনের খুশির জন্য প্রবাসীরা নিজের সব স্বাদ-আনন্দ কোরবানি দেন। যেই কোরবানি দেশের মানুষ বুঝতেই পারে না। ফোনে মিথ্যা ভালো থাকার অভিনয় করে যান প্রবাসীরা। এই প্রতিবেদকের সঙ্গে আলাপকালে এসব কথা জানান কয়েকজন কুয়েত প্রবাসী।

ক্লিনিং কোম্পানিতে কাজ করা কামাল, জলিল বলেন, আমাদের ঈদ বলতে কিছুই নেই। ভোরে ডিউটিতে আসি, সেই পোশাকে ঈদের নামাজ পড়ে আবার কাজ শুরু করি। নতুন জামা তো কিনি নাই, রুমে থাকা আয়রন করা পোশাকটা হ্যাংগারে ঝুলে আছে। ডিউটি শেষে রুমে গিয়ে মাংস রান্না করব, সবাই মিলে খেয়ে ঘুমাব। কেউ কেউ আছে দেখি সন্ধ্যায় ঘুরতে বের হয়।

Tag :

Write Your Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Save Your Email and Others Information

About Author Information

Robiul Islam

পরিবারের খুশির জন্য নিজের আনন্দ কুরবানি দেন প্রবাসীরা

আপডেট টাইম : 09:15:44 am, Friday, 30 June 2023

প্রবাস ডেস্ক: পরিবারের খুশির জন্য নিজের আনন্দ কুরবানি দেন প্রবাসীরা। শুধু তাই নয়, পরিবারের খরচের পাশাপাশি কোরবানির পশু কিনতে বাড়তি টাকা জোগাড় করতে আগে থেকে ওভার টাইম করে অথবা আগে থেকে অল্প অল্প করে টাকা জমিয়ে রাখেন।

কোরবানির ঈদ এলে পরিবারের খরচসহ পশু কেনার টাকা পাঠান পরিবারের মুখে হাসি ফোটাতে। অনেক প্রবাসী আছেন, যারা ঠিক সময়ে বেতন পান না, বেতন বকেয়া থাকে। তারা অন্যের কাছ থেকে ধারদেনা করে হলেও টাকা পাঠান দেশে। সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোতে ঈদের ছুটি থাকে, ওই সব প্রতিষ্ঠানের অল্প কিছু প্রবাসী ছুটি পেলেও ক্লিনিং, সিকিউরিটি, সুপারশপ, শপিং মলসহ বাসা-বাড়িতে যেসব প্রবাসীরা কাজ করেন তাদের ছুটি থাকে না। তাদের প্রতিদিনের মতো যথাসময়ে কাজ করতে হয়।

ঈদের জামাত শেষে কর্মস্থলে সহকর্মী যারা থাকেন অথবা আশপাশের প্রবাসীদের সঙ্গে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করেন তারা। দেখা যায়, বেশিরভাগ প্রবাসী নিজেরাই ব্যস্ত থাকে মোবাইল ফোনে চ্যাটে ও অন্যজনের সঙ্গে কলে। পাশের জনের খোঁজখবর নেওয়ার সময় থাকে না, অনেকেই আবার ভুলে যান কাজের ব্যস্ততায়। পরিবার-প্রিয়জনের খুশির জন্য প্রবাসীরা নিজের সব স্বাদ-আনন্দ কোরবানি দেন। যেই কোরবানি দেশের মানুষ বুঝতেই পারে না। ফোনে মিথ্যা ভালো থাকার অভিনয় করে যান প্রবাসীরা। এই প্রতিবেদকের সঙ্গে আলাপকালে এসব কথা জানান কয়েকজন কুয়েত প্রবাসী।

ক্লিনিং কোম্পানিতে কাজ করা কামাল, জলিল বলেন, আমাদের ঈদ বলতে কিছুই নেই। ভোরে ডিউটিতে আসি, সেই পোশাকে ঈদের নামাজ পড়ে আবার কাজ শুরু করি। নতুন জামা তো কিনি নাই, রুমে থাকা আয়রন করা পোশাকটা হ্যাংগারে ঝুলে আছে। ডিউটি শেষে রুমে গিয়ে মাংস রান্না করব, সবাই মিলে খেয়ে ঘুমাব। কেউ কেউ আছে দেখি সন্ধ্যায় ঘুরতে বের হয়।