Dhaka , Friday, 24 May 2024

যেসব পুরস্কার নিয়ে ফেরেন হাজিরা

  • Robiul Islam
  • আপডেট টাইম : 07:57:02 am, Friday, 7 July 2023
  • 63 বার

ইসলাম ডেস্ক: পবিত্র হজব্রত পালন শেষে দেশে ফিরছেন হাজিরা। অশ্রুসিক্ত নয়নে দেশে ফিরলেও পবিত্র ভূমি মক্কা-মদিনায় পড়ে থাকছে তাঁদের মন। হজ পালনে তাঁদের অর্থ ব্যয়, পরিশ্রম, দীর্ঘ সফর ও মক্কা-মদিনার প্রতি সীমাহীন ভালোবাসার কারণে আল্লাহ তাঁদের খালি হাতে ফেরাবেন না। ঈমান, নিয়ত ও নিষ্ঠার কারণে যাঁদের হজ কবুল হয়েছে, আল্লাহ তাঁদের অসংখ্য পুরস্কারে পুরস্কৃত করবেন।

ফলে তাঁরা আল্লাহর পক্ষ থেকে বহুবিদ পুরস্কার নিয়ে আপন ঘরে ফিরছেন।
যেসব পুরস্কার নিয়ে ফেরেন

সম্মানিত হাজিরা আল্লাহর পক্ষ থেকে যেসব পুরস্কার নিয়ে দেশে ফিরছেন, তার কয়েকটি হলো—
১. পাপমুক্তি : হজ মানুষকে পাপমুক্ত করে। যদিও ব্যক্তির পাপের পরিমাণ অনেক বেশি হয়। আবু হুরায়রা (রা.) বলেন, আমি আল্লাহর রাসুল (সা.)-কে বলতে শুনেছি, ‘যে ব্যক্তি আল্লাহর উদ্দেশ্যে হজ করল এবং অশালীন কথাবার্তা ও গুনাহ হতে বিরত রইল, সে সেদিনের মতো নিষ্পাপ হয়ে হজ থেকে ফিরে আসবে, যেদিন তার মা তাকে জন্ম দিয়েছিল।

’ (সহিহ বুখারি, হাদিস : ১৫২১)
২. বিপুল পুণ্য : আয়েশা (রা.) বলেন, হে আল্লাহর রাসুল, আমরা আল্লাহর পথে সংগ্রাম করাকে সর্বোত্তম আমল মনে করি, তবে কি আমরা আল্লাহর পথে সংগ্রাম করব না? আল্লাহর রাসুল (সা.) বলেন, ‘তোমাদের জন্য উত্তম সংগ্রাম হচ্ছে কবুল হজ।’ (সহিহ বুখারি, হাদিস : ২৭৮৪)

হাদিস বিশারদরা বলেন, এর দ্বারা হজের বিনিময়ে বিপুল পরিমাণ পুণ্য অর্জন করা উদ্দেশ্য।

৩. জান্নাতের ঘোষণা : মহানবী (সা.) হজ পালনকারীর জন্য জান্নাতের ঘোষণা দিয়েছেন। আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত, আল্লাহর রাসুল (সা.) বলেছেন, ‘এক ওমরাহর পর আরেক ওমরাহ—উভয়ের মধ্যবর্তী সময়ের (গুনাহের) জন্য কাফফারা।

আর জান্নাতই হলো কবুল হজের প্রতিদান।’ (সহিহ বুখারি, হাদিস : ১৭৭৩)
৪. প্রাচুর্য : হজ ও ওমরাহ মুমিনের জীবনে প্রাচুর্য বয়ে আনে। রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, ‘তোমরা ধারাবাহিকভাবে হজ ও ওমরাহ আদায় কোরো। কেননা এ দুটি ধারাবাহিকভাবে আদায় করলে তা দারিদ্র্য ও গুনাহ দূরীভূত করে, যেমন হাঁপর লোহার মরিচা দূর করে।’ (সুনানে ইবনে মাজাহ, হাদিস : ২৮৮৭)

৫. দোয়া কবুলের ঘোষণা : আল্লাহ হজ ও ওমরাহ পালনকারীর দোয়া কবুল করেন।

এটা তাঁদের প্রতি বিশেষ অনুগ্রহ। রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, ‘হজ ও ওমরাহর যাত্রীরা আল্লাহর প্রতিনিধিদল। তারা তাঁর কাছে দোয়া করলে তিনি তাদের দোয়া কবুল করেন এবং তাঁর কাছে মাফ চাইলে তিনি তাদের ক্ষমা করেন।’ (সুনানে ইবনে মাজাহ, হাদিস : ২৮৯২)

৬. আল্লাহর নিরাপত্তা : আবু হুরায়রা (রা.) বলেন, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, ‘তিন ব্যক্তি আল্লাহর জিম্মায় (নিরাপত্তায়) থাকে : এক. যে ব্যক্তি কোনো মসজিদের উদ্দেশে বের হয়, দুই. যে ব্যক্তি আল্লাহর পথে যুদ্ধ করতে বের হয়, তিন. যে ব্যক্তি হজ করতে বের হয়।’ (মুসনাদে হুমাইদি, হাদিস : ১০৯০)

৭. সর্বোত্তম আমল : রাসুলুল্লাহ (সা.) হজকে পৃথিবীর সর্বোত্তম আমলগুলোর অন্তর্ভুক্ত বলেছেন। তিনি বলেন, ‘সর্বোত্তম আমল হলো, আল্লাহর একত্ববাদে বিশ্বাস করা, অতঃপর আল্লাহর পথে যুদ্ধ করা, এরপর কবুল হজ। এগুলো পৃথিবীর সমস্ত আমলের মধ্যে শ্রেষ্ঠত্বের অধিকারী।’ (সহিহুল জামে, হাদিস : ১০৯২)

৮. উচ্চ মর্যাদা : আল্লাহ হজ আদায়কারীকে উচ্চ মর্যাদা দান করেন। রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, ‘হাজির উট পা উঠালে বা নামালে বিনিময়ে আল্লাহ তার জন্য পুণ্য লেখেন বা তার পাপ মোচন করেন অথবা মর্যাদা বৃদ্ধি করেন।’ (শুআবুল ঈমান, হাদিস : ৪১১৬)

৯. সুস্থতা : হজে গিয়ে হাজিরা জমজমের পানি পান করেন। আর এ পানিতে আল্লাহ বহু রোগের আরোগ্য রেখেছেন। রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, ‘পৃথিবীর বুকে সর্বোত্তম পানি জমজম কূপের পানি। তাতে আছে তৃষ্ণার তৃপ্তি ও রোগের আরোগ্য।’ (সহিহুত তারগিব, হাদিস : ১১৬১)

১০. আল্লাহর প্রশংসা : জাবির (রা.) বলেন, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, ‘আরাফার দিন আল্লাহ তাআলা দুনিয়ার আকাশে নেমে আসেন এবং হাজিদের ব্যাপারে ফেরেশতাদের সামনে গর্ব করে বলেন, তোমরা আমার বান্দাদের দিকে তাকাও, তারা আমার কাছে আসছে এলোমেলো চুলে, ধুলাবালি গায়ে, আহাজারি করতে করতে দূর-দূরান্ত থেকে উপস্থিত হয়েছে।

আমি তোমাদের সাক্ষী করে বলছি, আমি তাদের মাফ করে দিলাম। তখন ফেরেশতারা বলে, হে প্রতিপালক, অমুক বান্দাকে তো বড় গুনাহগার বলে অভিহিত করা হয় এবং অমুক পুরুষ ও নারীকেও। তিনি (সা.) বলেন, আল্লাহ তখন বলেন, আমি তাদেরও ক্ষমা করে দিলাম। রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, আরাফার দিনের চেয়ে এত বেশি জাহান্নাম হতে মুক্তি দেওয়ার মতো আর কোনো দিন নেই।’ (মিশকাতুল মাসাবিহ, হাদিস : ২৬০১)

হজ-পরবর্তী জীবন যেমন হবে

প্রাজ্ঞ আলেমরা হজের পর হাজিদের জীবন কেমন হবে তা বর্ণনার সময় বলেন, হাজিরা নিম্নোক্ত সংকল্পগুলো করবেন। যেমন—

১. যে চোখ দিয়ে আল্লাহ কাবা দর্শনের তাওফিক দিয়েছেন, রাসুলুল্লাহ (সা.)-এর রওজা দেখিয়েছেন সে চোখ দিয়ে গুনাহ করব না।

২. আল্লাহর রহমতের প্রতি আশা রেখে বলা যায়, তিনি আমার হজ কবুল করেছেন এবং এর বদৌলতে আমাকে নবজাত শিশুর মতো নিষ্পাপ করেছেন। ইনশাআল্লাহ! আমি পাপমুক্ত থাকার চেষ্টা করব। কোনো গুনাহ হয়ে গেলেও তাৎক্ষণিক তাওবা-ইস্তিগফার করে নেব।

৩. বিদায় হজের বিভিন্ন স্থানে রাসুলুল্লাহ (সা.) তাঁর ঐতিহাসিক ভাষণে যেসব গুরুত্বপূর্ণ উপদেশ দিয়েছেন তার সব কিছু মনে-প্রাণে মানব এবং তার ওপর অটল থাকব।

৪. আমার হজটি কবুল হলো কি না—এটা তো কেবল আল্লাহই জানেন। তবে এর একটি বাহ্যিক নিদর্শন হলো, হজের পর দ্বিনদারি ও ঈমানি অবস্থার উন্নতি হওয়া। সুতরাং নিজের দ্বিনদারির প্রতি সতর্ক দৃষ্টি রাখা এবং তা উন্নতির চেষ্টা করা।

৫. মহান আল্লাহ যখন তাঁর ঘর দেখা ও জিয়ারত করার তাওফিক দিয়েছেন, তখন এই নেয়ামতের মর্যাদা রক্ষা করা। আল্লাহর অনুগ্রহে জান্নাতে প্রবেশ পর্যন্ত তাঁর শোকর আদায় করতে থাকা।

আল্লাহ সবার হজ কবুল করুন। আমিন

Tag :

Write Your Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Save Your Email and Others Information

About Author Information

Robiul Islam

যেসব পুরস্কার নিয়ে ফেরেন হাজিরা

আপডেট টাইম : 07:57:02 am, Friday, 7 July 2023

ইসলাম ডেস্ক: পবিত্র হজব্রত পালন শেষে দেশে ফিরছেন হাজিরা। অশ্রুসিক্ত নয়নে দেশে ফিরলেও পবিত্র ভূমি মক্কা-মদিনায় পড়ে থাকছে তাঁদের মন। হজ পালনে তাঁদের অর্থ ব্যয়, পরিশ্রম, দীর্ঘ সফর ও মক্কা-মদিনার প্রতি সীমাহীন ভালোবাসার কারণে আল্লাহ তাঁদের খালি হাতে ফেরাবেন না। ঈমান, নিয়ত ও নিষ্ঠার কারণে যাঁদের হজ কবুল হয়েছে, আল্লাহ তাঁদের অসংখ্য পুরস্কারে পুরস্কৃত করবেন।

ফলে তাঁরা আল্লাহর পক্ষ থেকে বহুবিদ পুরস্কার নিয়ে আপন ঘরে ফিরছেন।
যেসব পুরস্কার নিয়ে ফেরেন

সম্মানিত হাজিরা আল্লাহর পক্ষ থেকে যেসব পুরস্কার নিয়ে দেশে ফিরছেন, তার কয়েকটি হলো—
১. পাপমুক্তি : হজ মানুষকে পাপমুক্ত করে। যদিও ব্যক্তির পাপের পরিমাণ অনেক বেশি হয়। আবু হুরায়রা (রা.) বলেন, আমি আল্লাহর রাসুল (সা.)-কে বলতে শুনেছি, ‘যে ব্যক্তি আল্লাহর উদ্দেশ্যে হজ করল এবং অশালীন কথাবার্তা ও গুনাহ হতে বিরত রইল, সে সেদিনের মতো নিষ্পাপ হয়ে হজ থেকে ফিরে আসবে, যেদিন তার মা তাকে জন্ম দিয়েছিল।

’ (সহিহ বুখারি, হাদিস : ১৫২১)
২. বিপুল পুণ্য : আয়েশা (রা.) বলেন, হে আল্লাহর রাসুল, আমরা আল্লাহর পথে সংগ্রাম করাকে সর্বোত্তম আমল মনে করি, তবে কি আমরা আল্লাহর পথে সংগ্রাম করব না? আল্লাহর রাসুল (সা.) বলেন, ‘তোমাদের জন্য উত্তম সংগ্রাম হচ্ছে কবুল হজ।’ (সহিহ বুখারি, হাদিস : ২৭৮৪)

হাদিস বিশারদরা বলেন, এর দ্বারা হজের বিনিময়ে বিপুল পরিমাণ পুণ্য অর্জন করা উদ্দেশ্য।

৩. জান্নাতের ঘোষণা : মহানবী (সা.) হজ পালনকারীর জন্য জান্নাতের ঘোষণা দিয়েছেন। আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত, আল্লাহর রাসুল (সা.) বলেছেন, ‘এক ওমরাহর পর আরেক ওমরাহ—উভয়ের মধ্যবর্তী সময়ের (গুনাহের) জন্য কাফফারা।

আর জান্নাতই হলো কবুল হজের প্রতিদান।’ (সহিহ বুখারি, হাদিস : ১৭৭৩)
৪. প্রাচুর্য : হজ ও ওমরাহ মুমিনের জীবনে প্রাচুর্য বয়ে আনে। রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, ‘তোমরা ধারাবাহিকভাবে হজ ও ওমরাহ আদায় কোরো। কেননা এ দুটি ধারাবাহিকভাবে আদায় করলে তা দারিদ্র্য ও গুনাহ দূরীভূত করে, যেমন হাঁপর লোহার মরিচা দূর করে।’ (সুনানে ইবনে মাজাহ, হাদিস : ২৮৮৭)

৫. দোয়া কবুলের ঘোষণা : আল্লাহ হজ ও ওমরাহ পালনকারীর দোয়া কবুল করেন।

এটা তাঁদের প্রতি বিশেষ অনুগ্রহ। রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, ‘হজ ও ওমরাহর যাত্রীরা আল্লাহর প্রতিনিধিদল। তারা তাঁর কাছে দোয়া করলে তিনি তাদের দোয়া কবুল করেন এবং তাঁর কাছে মাফ চাইলে তিনি তাদের ক্ষমা করেন।’ (সুনানে ইবনে মাজাহ, হাদিস : ২৮৯২)

৬. আল্লাহর নিরাপত্তা : আবু হুরায়রা (রা.) বলেন, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, ‘তিন ব্যক্তি আল্লাহর জিম্মায় (নিরাপত্তায়) থাকে : এক. যে ব্যক্তি কোনো মসজিদের উদ্দেশে বের হয়, দুই. যে ব্যক্তি আল্লাহর পথে যুদ্ধ করতে বের হয়, তিন. যে ব্যক্তি হজ করতে বের হয়।’ (মুসনাদে হুমাইদি, হাদিস : ১০৯০)

৭. সর্বোত্তম আমল : রাসুলুল্লাহ (সা.) হজকে পৃথিবীর সর্বোত্তম আমলগুলোর অন্তর্ভুক্ত বলেছেন। তিনি বলেন, ‘সর্বোত্তম আমল হলো, আল্লাহর একত্ববাদে বিশ্বাস করা, অতঃপর আল্লাহর পথে যুদ্ধ করা, এরপর কবুল হজ। এগুলো পৃথিবীর সমস্ত আমলের মধ্যে শ্রেষ্ঠত্বের অধিকারী।’ (সহিহুল জামে, হাদিস : ১০৯২)

৮. উচ্চ মর্যাদা : আল্লাহ হজ আদায়কারীকে উচ্চ মর্যাদা দান করেন। রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, ‘হাজির উট পা উঠালে বা নামালে বিনিময়ে আল্লাহ তার জন্য পুণ্য লেখেন বা তার পাপ মোচন করেন অথবা মর্যাদা বৃদ্ধি করেন।’ (শুআবুল ঈমান, হাদিস : ৪১১৬)

৯. সুস্থতা : হজে গিয়ে হাজিরা জমজমের পানি পান করেন। আর এ পানিতে আল্লাহ বহু রোগের আরোগ্য রেখেছেন। রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, ‘পৃথিবীর বুকে সর্বোত্তম পানি জমজম কূপের পানি। তাতে আছে তৃষ্ণার তৃপ্তি ও রোগের আরোগ্য।’ (সহিহুত তারগিব, হাদিস : ১১৬১)

১০. আল্লাহর প্রশংসা : জাবির (রা.) বলেন, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, ‘আরাফার দিন আল্লাহ তাআলা দুনিয়ার আকাশে নেমে আসেন এবং হাজিদের ব্যাপারে ফেরেশতাদের সামনে গর্ব করে বলেন, তোমরা আমার বান্দাদের দিকে তাকাও, তারা আমার কাছে আসছে এলোমেলো চুলে, ধুলাবালি গায়ে, আহাজারি করতে করতে দূর-দূরান্ত থেকে উপস্থিত হয়েছে।

আমি তোমাদের সাক্ষী করে বলছি, আমি তাদের মাফ করে দিলাম। তখন ফেরেশতারা বলে, হে প্রতিপালক, অমুক বান্দাকে তো বড় গুনাহগার বলে অভিহিত করা হয় এবং অমুক পুরুষ ও নারীকেও। তিনি (সা.) বলেন, আল্লাহ তখন বলেন, আমি তাদেরও ক্ষমা করে দিলাম। রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, আরাফার দিনের চেয়ে এত বেশি জাহান্নাম হতে মুক্তি দেওয়ার মতো আর কোনো দিন নেই।’ (মিশকাতুল মাসাবিহ, হাদিস : ২৬০১)

হজ-পরবর্তী জীবন যেমন হবে

প্রাজ্ঞ আলেমরা হজের পর হাজিদের জীবন কেমন হবে তা বর্ণনার সময় বলেন, হাজিরা নিম্নোক্ত সংকল্পগুলো করবেন। যেমন—

১. যে চোখ দিয়ে আল্লাহ কাবা দর্শনের তাওফিক দিয়েছেন, রাসুলুল্লাহ (সা.)-এর রওজা দেখিয়েছেন সে চোখ দিয়ে গুনাহ করব না।

২. আল্লাহর রহমতের প্রতি আশা রেখে বলা যায়, তিনি আমার হজ কবুল করেছেন এবং এর বদৌলতে আমাকে নবজাত শিশুর মতো নিষ্পাপ করেছেন। ইনশাআল্লাহ! আমি পাপমুক্ত থাকার চেষ্টা করব। কোনো গুনাহ হয়ে গেলেও তাৎক্ষণিক তাওবা-ইস্তিগফার করে নেব।

৩. বিদায় হজের বিভিন্ন স্থানে রাসুলুল্লাহ (সা.) তাঁর ঐতিহাসিক ভাষণে যেসব গুরুত্বপূর্ণ উপদেশ দিয়েছেন তার সব কিছু মনে-প্রাণে মানব এবং তার ওপর অটল থাকব।

৪. আমার হজটি কবুল হলো কি না—এটা তো কেবল আল্লাহই জানেন। তবে এর একটি বাহ্যিক নিদর্শন হলো, হজের পর দ্বিনদারি ও ঈমানি অবস্থার উন্নতি হওয়া। সুতরাং নিজের দ্বিনদারির প্রতি সতর্ক দৃষ্টি রাখা এবং তা উন্নতির চেষ্টা করা।

৫. মহান আল্লাহ যখন তাঁর ঘর দেখা ও জিয়ারত করার তাওফিক দিয়েছেন, তখন এই নেয়ামতের মর্যাদা রক্ষা করা। আল্লাহর অনুগ্রহে জান্নাতে প্রবেশ পর্যন্ত তাঁর শোকর আদায় করতে থাকা।

আল্লাহ সবার হজ কবুল করুন। আমিন