Dhaka , Friday, 24 May 2024

স্কুলের গাড়িতে আটকে শিশুর মৃত্যু, চালককে ক্ষমা করে দিলো পরিবার

  • Reporter Name
  • আপডেট টাইম : 08:51:12 pm, Thursday, 9 May 2024
  • 21 বার

আরব আমিরাত প্রতিনিধি : সংযুক্ত আরব আমিরাতের শারজায় মোহাম্মদ মুনতাসির (৭) নামে এক বাংলাদেশি শিক্ষার্থী স্কুলে যাওয়ার গাড়িতে আটকা পড়ে শ্বাসরুদ্ধ হয়ে মারা গেছে। সোমবার এ ঘটনা ঘটে। খালিজ টাইমসে প্রতিবেদনটি প্রকাশিত হয়েছে।

ঘটনার বিবরণে জানা যায়, ইব্নে সীনা স্কুলের শিক্ষার্থী মুনতাসিরকে তার অভিভাবকরা সোমবার সকালে শারজাহ জুলেখা হাসপাতালের পেছনে তাদের বাসা থেকে আরও সাত শিশুসহ নিয়মিত কার লিফট দেওয়া এক নারী ড্রাইভারের গাড়িতে তুলে দেন। গাড়ি স্কুলে পৌঁছালে অন্যান্য শিশুরা নেমে পড়লেও মুনতাসির ঘুমিয়ে থাকায় গাড়ি থেকে নামেনি।

প্রায় সাত ঘণ্টা গাড়ির দরজা জানালা বন্ধ থাকায় মুনতাসির অক্সিজেনের অভাবে শ্বাসরুদ্ধ হয়ে গাড়িতে নিস্তেজ হয়ে পড়ে থাকে। পরে যথারীতি ওই নারী বিকেল ৩টার দিকে স্কুল থেকে অন্যান্য বাচ্চাদের আনতে গেলে মুনতাসিরের নিথর দেহ তার চোখে পড়ে। এদিকে শিশু মুনতাসিরের মা সন্তানের প্রিয় খাবার রান্না করে অপেক্ষায় ছিলেন। তিনি সন্তানের মুখে খাবার তুলে দেওয়ার বদলে পেলেন তার লাশ।

পুলিশ ওই নারী ড্রাইভারকে আটক করে দেশটির ওয়াসিত পুলিশ স্টেশনে নিয়ে যায়। মঙ্গলবার (৭ মে) তদন্ত শেষে বাদ আসর শারজায় তার লাশ দাফন করা হয়েছে।

মুনতাসিরের বাবা ইউএইতে কর্মরত প্রকৌশলী মোহাম্মদ রিয়াজ গ্রেফতার নারী ড্রাইভারকে একমাত্র আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য সম্পূর্ণরূপে ক্ষমা করে দেন। ফলে নারীকে আদালত কারাগার থেকে মুক্তি দিয়ে দেন।

শিশুটির বাবা পুলিশ প্রশাসনকে বলেন, আমি ব্ল্যাড ম্যানি নিয়ে কী করবো! আমার সন্তান কি আর ফিরে আসবে! শিশুটির মা অত্যন্ত পরহেজগার। তার বুকফাটা কান্না তিনি পাথর সদৃশ করে রেখেছেন!

এত বড় উদারতা আরব আমিরাতে কোনো বাঙালির এটাই প্রথম। যা ইতিহাস হয়ে থাকবে বলে মন্তব্য করেন শারজা আওক্বাফের ইমাম মাওলানা সাইফুল্লাহ মেহেরুজ্জামান।

 

Tag :

Write Your Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Save Your Email and Others Information

About Author Information

Robiul Islam

স্কুলের গাড়িতে আটকে শিশুর মৃত্যু, চালককে ক্ষমা করে দিলো পরিবার

আপডেট টাইম : 08:51:12 pm, Thursday, 9 May 2024

আরব আমিরাত প্রতিনিধি : সংযুক্ত আরব আমিরাতের শারজায় মোহাম্মদ মুনতাসির (৭) নামে এক বাংলাদেশি শিক্ষার্থী স্কুলে যাওয়ার গাড়িতে আটকা পড়ে শ্বাসরুদ্ধ হয়ে মারা গেছে। সোমবার এ ঘটনা ঘটে। খালিজ টাইমসে প্রতিবেদনটি প্রকাশিত হয়েছে।

ঘটনার বিবরণে জানা যায়, ইব্নে সীনা স্কুলের শিক্ষার্থী মুনতাসিরকে তার অভিভাবকরা সোমবার সকালে শারজাহ জুলেখা হাসপাতালের পেছনে তাদের বাসা থেকে আরও সাত শিশুসহ নিয়মিত কার লিফট দেওয়া এক নারী ড্রাইভারের গাড়িতে তুলে দেন। গাড়ি স্কুলে পৌঁছালে অন্যান্য শিশুরা নেমে পড়লেও মুনতাসির ঘুমিয়ে থাকায় গাড়ি থেকে নামেনি।

প্রায় সাত ঘণ্টা গাড়ির দরজা জানালা বন্ধ থাকায় মুনতাসির অক্সিজেনের অভাবে শ্বাসরুদ্ধ হয়ে গাড়িতে নিস্তেজ হয়ে পড়ে থাকে। পরে যথারীতি ওই নারী বিকেল ৩টার দিকে স্কুল থেকে অন্যান্য বাচ্চাদের আনতে গেলে মুনতাসিরের নিথর দেহ তার চোখে পড়ে। এদিকে শিশু মুনতাসিরের মা সন্তানের প্রিয় খাবার রান্না করে অপেক্ষায় ছিলেন। তিনি সন্তানের মুখে খাবার তুলে দেওয়ার বদলে পেলেন তার লাশ।

পুলিশ ওই নারী ড্রাইভারকে আটক করে দেশটির ওয়াসিত পুলিশ স্টেশনে নিয়ে যায়। মঙ্গলবার (৭ মে) তদন্ত শেষে বাদ আসর শারজায় তার লাশ দাফন করা হয়েছে।

মুনতাসিরের বাবা ইউএইতে কর্মরত প্রকৌশলী মোহাম্মদ রিয়াজ গ্রেফতার নারী ড্রাইভারকে একমাত্র আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য সম্পূর্ণরূপে ক্ষমা করে দেন। ফলে নারীকে আদালত কারাগার থেকে মুক্তি দিয়ে দেন।

শিশুটির বাবা পুলিশ প্রশাসনকে বলেন, আমি ব্ল্যাড ম্যানি নিয়ে কী করবো! আমার সন্তান কি আর ফিরে আসবে! শিশুটির মা অত্যন্ত পরহেজগার। তার বুকফাটা কান্না তিনি পাথর সদৃশ করে রেখেছেন!

এত বড় উদারতা আরব আমিরাতে কোনো বাঙালির এটাই প্রথম। যা ইতিহাস হয়ে থাকবে বলে মন্তব্য করেন শারজা আওক্বাফের ইমাম মাওলানা সাইফুল্লাহ মেহেরুজ্জামান।